November 2020
1 SPORTS 1 TECHNOLOGY 2 অজ্ঞাত লাশ-সোনারগাঁও 4 অনিয়ম 1 অনিয়ম- শহীদ মিনার নির্মাণ 1 অনুদান 1 অপমৃত্যু-সোনারগাঁও 1 অপরাদ 39 অপরাধ 18 অপরাধ দমন 1 অপরাধ দমনে ভ্রাম্যমান আদালত 22 অপরাধ সোনারগাঁ 1 অফিস উদ্ধোধন 1 অভিনন্দন 1 অর্জন 1 অস্র উদ্ধার 3 আইনশৃঙ্খলা 12 আড়াইহাজার 4 আদালত 1 আন্তর্জাতিক 1 আশ্চার্য 1 ইফতার ও মাক্স বিতরণ-সোনারগাঁও 2 ঈদ উপহার-সোনারগাঁও 1 ঈদ কেনাকাটা -সোনারগাঁও 5 ঈদ শুভেচ্ছা 1 উদ্ধার 1 উদ্যোক্তা 6 উন্নয়ন 2 কক্সবাজার 1 কারাগার নারায়ণগঞ্জ। 2 কুড়িগ্রাম 3 কৃষকের ভাবনা 1 খুন 6 খেলাধুলা 2 গ্রেফতার -নারায়ণগঞ্জ 1 গ্রেফতার -সোনারগাঁও 3 চট্টগ্রাম 1 চাকরি 1 চাঁদপুর 2 চিকিৎসা 1 চুরি 2 জন দূর্ভোগ 1 জনসেবা ও পুলিশ 1 জনস্বার্থ 3 জন্ম উৎসব 1 জন্মদিন 3 জন্মশতবার্ষিকী পালন 96 জাতীয় 1 জাতীয়। 1 জালিয়াতি 1 টাঙ্গাইল 1 ঢাকা 1 তথ্য 1 তদন্ত 4 ত্রাণ বিতরণ 1 ত্রাণ বিতরন-বন্দর 1 দুর্যোগ 6 দূর্ঘটনা 1 ধর্ষন 1 নগদ অর্থসহায়তা 9 নারায়ণগঞ্জ 1 নারায়ণগঞ্জ সদর 39 নারায়াণগঞ্জ 1 নারায়াণগঞ্জে অস্রের লাইসেন্স। 4 নির্বাচন 3 নির্বাচন সোনারগাঁও 1 নৌকাডুবি 1 পরিচ্ছন্নতা 4 প্রতিবাদ 1 প্রতিবাদ সভা 1 প্রতিবাদ সোনারগাঁ 4 প্রধানমন্ত্রীর উপহার-সোনারগাঁও 2 ফতুল্লা নারায়ণগঞ্জ 1 বন্দর মডেল প্রেসক্লাব 3 বন্দর-নারায়ণগঞ্জ 1 বন্দর(নারায়ণগঞ্জ) 2 বহিঃবিশ্ব 2 বহিষ্কার 1 বাক্ষণবাড়িয়া 1 বানিজ্য 1 বাল্য বিবাহ বন্ধ 1 বিট পুলিশিং সোনারগাঁ 1 বিশ্ব 1 বিশ্ব বাজার 1 ব্যবসা বানিজ্য 1 ভিত্তিপ্রস্তর 1 ভূয়া কর্মকর্তা গ্রেফতার 1 ভ্রাম্যমান আদালত-সোনারগাঁও 1 মাদক উদ্ধার-নারায়ণগঞ্জ 1 মাদারীপুর 1 মানবতার সেবা 1 মানবন্ধন 1 মানবিকতা 1 মানিকগঞ্জ 1 মামলা 1 মাস্ক বিতরণ 1 মিডিয়া 2 মিডিয়া সংবাদ 3 মৃত্যু 1 রক্তদান 6 রাজনীতি 1 রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন 1 রূপগঞ্জ 1 র‌্যাব নারায়ণগঞ্জ 2 র‌্যাবের হাতে গ্রেফতার 2 লকডাউন 3 শোক 4 শোক বার্তা 1 শোখ নিউজ 1 সংবাদ সম্মেলন 1 সভা-প্রতিবাদ 2 সারা বাংলা 3 সারাবাংলা 1 সিদ্ধিরগঞ্জ 1 সিনেমা 1 সেবা 3 সোনারগাঁ 1 সোনারগাঁ যাদুঘর 103 সোনারগাঁও 1 সোনারগাঁও জার্নালিষ্ট ক্লাব-নারায়ণগঞ্জ 1 সোনারগাঁও থানা পুলিশ 1 সোনারগাঁও থানা মসজিদ 2 সোনারগাঁও থানা(নারায়ণগঞ্জ) 2 সোনারগাঁও পৌর নির্বাচন 1 সোনারগাঁও মানবন্ধন 15 সোনারগাঁও রাজনীতি 3 সোনারগাঁও। 1 সোমারগাঁও 1 স্বাস্থ্য 1 স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা 1 হত্যার হুমকি

 


নিজস্ব সংবাদদাতাঃ

সভাপতি মামুন, সম্পাদক মোফিজুর রহমান খান বাবু ও কোষাধ্যক্ষ মন্টু।

ঢাকা সাংবাদিক পরিবার বহুমুখী সমবায় সমিতির বার্ষিক সাধারণ সভা ও নির্বাচন’ ২০২০-২০২৩ অনুষ্ঠিত হয়েছে। 


গত শনিবার (২৮ নভেম্বর) জাতীয় প্রেসক্লাব অডিটোরিয়ামে উৎসব মুখর পরিবেশে ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে ভোটারদের অংশগ্রহণে অনুষ্ঠিত হয়েছে এ নির্বাচন। সভাপতি পদে মোহাম্মদ আল মামুন (দৈনিক ইত্তেফাক) ১৯৭ ভোট ও সম্পাদক পদে মো. মফিজুর রহমান খান বাবু (দৈনিক বাংলাদেশের আলো) ৩৯০ সর্বোচ্চ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন।সমিতির নির্বাচিত অন্যান্য কর্মকর্তারা হলেন সহ-সভাপতি পদে এস এম মোশারফ হোসেন (দৈনিক দেশ বাংলা) ১৮০ ভোট, যুগ্ম সাম্পাদক পদে এএসএম হানিফ (এনএনবি) ১৮৬ ভোট ও কোষাধ্যক্ষ পদে রাজেন্দ্র চন্দ্র দেব মন্টু (দৈনিক আজকের সংবাদ) ৩০৯ ভোটে নির্বাচিত হয়েছেন।পরিচালক পদে নির্বাচিত হয়েছেন কমল চৌধুরী (দৈনিক নওরোজ) ২০৬ ভোট, শাহীন কাওছার (দৈনিক মানব জমিন) ২০৪ ভোট, মোশারফ হোসেন (দৈনিক নওরোজ) ১৯৬ ভোট, সাজেদুল ইসলাম রাজু (দৈনিক সকালের সময়) ১৯২ ভোট, কাওসার খোকন (দৈনিক ইত্তেফাক) ১৮৮ ভোট, পলি খান (আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল নিউজ এজেন্সী) ১৭৯ ভোট, জয়নাল আবেদীন (ডেইলি ট্রাইব্যুনাল) ১৭৮ ভোট পেয়েছেন।এর আগে সমিতির সভাপতি তরুণ তপন চক্রবর্তীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ। 

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিএফইউজে বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন এর সভাপতি মোল্লা জালাল, মহাসচিব শাবান মাহমুদ, জাতীয় প্রেসক্লাবের সভাপতি মো. সাইফুল আলম, সাধারণ সম্পাদক ফরিদা ইয়াসমিন, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন (ডিইউজে) সভাপতি কুদ্দুস আফ্রাদ, সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদ আলম খান তপু ও বাংলাদেশ সম্পাদক ফোরামের আহ্বায়ক মো. রফিকুল ইসলাম রতন প্রমুখ।এরপর বিএফইউজে’র সাবেক মহাসচিব ও জাতীয় প্রেসক্লাবের সিঃ সহ-সভাপতি ওমর ফারুক এর সভাপতিত্বে কর্ম অধিবেশনে সম্পাদক ও কোষাধক্ষের রিপোর্টের উপর আলোচনার পর সর্বসম্মতিক্রমে রিপোর্ট গৃহীত হয়।এছাড়া সমিতির প্রয়াত সদস্যদের স্মরণে শোক প্রস্তাব গৃহীত হয়। নির্বাচন পরিচালনা কমিটির সভাপতি মঞ্জুরুল আহসান বুলবুল ফলাফল ঘোষণা করেন। এ সময় কমিটির সদস্য আজাদ কবির, আহমেদ মুকুল ও আশিস সেন উপস্থিত ছিলেন।


এসএস/বি



নিজস্ব সংবাদদাতাঃ

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ে পিরোজপুর ইউনিয়নের চেঙ্গাকান্দি দক্ষিণপাড়া গ্রামের বাসিন্দা ও দৈনিক আমাদের নতুন সময় পত্রিকার সোনারগাঁ প্রতিনিধি মোঃ শাহজালালকে হত্যার উদ্দেশ্যে হামলা চালিয়েছে বলে সন্ত্রাসীদেও বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে।

২৮ নভেম্বর শনিবার সকালে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা চালিয়ে পিটিয়ে ও কুপিয়ে পা ভেঙ্গে দেয় সন্ত্রাসীরা। আহত সাংবাদিক শাহজালালকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় আহত সাংবাদিকের বাবা হাজী আলম চাঁন বাদী হয়ে সোনারগাঁ থানায় মামলা দায়ের করেছেন। ঘটনার পর প্রধান আসামী সিরাজুল ইসলাম মোল্লাকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বাকি আসামীরা পলাতক রয়েছে।


সোনারগাঁ থানা দায়ের করা মামলায় উল্লেখ্য, উপজেলার চেঙ্গাকান্দি গ্রামের বাসিন্দা ও দৈনিক আমাদের নতুন সময় পত্রিকার সোনারগাঁ প্রতিনিধি মোঃ শাহজালালের সাথে একই এলাকার সিরাজুল ইসলাম মোল্লার দীর্ঘদিন ধরে শত্রুতা চলছে। এ শত্রুতার জের ধরে শনিবার সকাল ৯ টার দিকে চেঙ্গাকান্দি বাজারে তাদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে সিরাজুল ইসলামের নেতৃত্বে মজু মোল্লা, সোহাগ, সামাদ, মোবারক হোসেন, রাফি ও নাদিমসহ ১০-১২ জনের একটি দল দেশীয় অস্ত্র দা, রামদা, লোহার রড, কুড়াল ও কাঠ নিয়ে হামলা করে। এসময় সাংবাদিক শাহাজালালকে একা পেয়ে সন্ত্রাসীরা কুপিয়ে ও পিটিয়ে পা ভেঙ্গে দেয়। আহত সাংবাদিক শাহজালালকে উদ্ধার করে প্রথমে সোনারগাঁ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ঢাকায় পঙ্গু হাসপাতালে প্রেরণ করে।


আহত সাংবাদিক শাহজালালের বাবা হাজী আলম চাঁন জানান, দীর্ঘদিন ধরে তাদের সাথে সিরাজুল ইসলাম মোল্লার বিরোধ চলছে। এ বিরোধকে কেন্দ্র করে আমাদের চাউলের আড়তে হামলা চালায়। এসময় সাংবাদিক শাহজালালকে একা পেয়ে সন্ত্রাসীরা কুপিয়ে ও পিটিয়ে ডান পা ভেঙ্গে দেয় এবং ক্যাশ বাক্স থেকে নগদ ৪ লাখ টাকা লুট করে নিয়ে যায়। সোনারগাঁ থানার ওসি রফিকুল ইসলাম বলেন, সাংবাদিকের উপর হামলার ঘটনায় প্রধান আসামীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বাকী আসামীদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।


এসএস/বি


সদ্য সংবাদ ডেস্কঃ 

সাবেক কেন্দ্রীয় ছাত্রনেতা ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের'কেন্দ্রীয় উপ-কমিটির সহ-সম্পাদক, এ এইচ এম মাসুদ দুলাল করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন। তিনি তাঁর ঢাকার বাসায় এখন আইসোলেশনে আছেন।


এ এইচ এম মাসুদ দুলাল নারায়ণগঞ্জ সোনারগাঁও -মোগরাপাড়া ইউনিয়নের ডহরপাড়া গ্রামের স্বনামধন্য পরিবারের সন্তান।
ছাত্র জীবন থেকেই আওয়ামী রাজনীতির সাথে জড়িত।
মানব সেবায় এলাকায় তার কর্মকান্ড দৃষ্টান্ত হয়ে আছে।

গত মঙ্গবার তার কভিট -১৯ পজেটিভ এসেছে। সবার কাছে দোয়ার দরখাস্ত।
যেন দ্রুত সুস্থ হয়ে যান।

এসএস/বি

 সদ্য সংবাদ ডেস্কঃ 

সোনারগাঁ প্রতিনিধিঃ নারায়ণগঞ্জ জেলার সোনারগাঁও উপজেলার সোনারগাঁ জি আর ইনস্টিটিউশনের মেইন গেইটের নাম ফলক ভাঙ্গার বিরুদ্ধে মানববন্ধনের সংবাদ পরিবেশন করায় এমপি লিয়াকত হোসেন খোকার নেতাকর্মীরা উদ্দেশ্য প্রণীত ভাবে সাংবাদিক শওকত ওসমান সরকার রিপনের বিরুদ্ধে মিথ্যা জায়গা দখল ও হুমকি প্রদান সহ অপপ্রচার চালাচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে।




                            সাংবাদিক রিপন সরকার


গতকাল মঙ্গলবার বিকালে সোনারগাঁ জিআর ইনস্টিটিউশন স্কুল এন্ড কলেজের সামনে নারায়ণগঞ্জ- ৩ আসনের জাতীয় পার্টির এমপি লিয়াকত হোসেন খোকার বিরুদ্ধে আওয়ামী লীগের মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশের প্রতিবাদে প্রতিবাদ সভায় এই অপপ্রচার চালানো হয়। সভামঞ্চে এক নারী সোনারগাঁও উপজেলা আওয়ামী লীগের এক নেতার বিরুদ্ধে বক্তব্য দেওয়ার সময় এমপি লিয়াকত হোসেন খোকার সোনারগাঁও উপজেলা জাতীয় পার্টির প্রচার সম্পাদক সহিদ তার মোবাইল মনিটর দেখে ওই নারীকে বলে সাংবাদিক রিপনের নাম বলার জন্য। পরে ওই নারী সাংবাদিক রিপন জমি দখল ও হুমকি দিচ্ছে বলে বক্তব্যে বলেন।

সাংবাদিক রিপনের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, যে মহিলা কে দিয়ে তার বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালানো হচ্ছে
সেই মহিলাকে সাংবাদিক রিপন জীবনে কখনোও দেখেন নাই বা চিনেন না। এবং তার সঙ্গে এই মহিলার কোনো লেনদেন নেই। তাই প্রশ্নই ওঠে না তার জায়গা দখলে যাওয়ার বা ওই মহিলাকে হুমকি প্রদানের। তিনি বলেন সাংবাদিকদের কাজ হুমকি ধামকি দিয়ে কারো জায়গা জমি দখল করা নয়। সাংবাদিকদের কাজ হচ্ছে জনসমক্ষে সঠিক সংবাদ তুলে ধরা।

উল্লেখ্য, জি আর স্কুল এন্ড কলেজ গেইটে স্থাপিত আনােয়ার হােসেনের উদ্বোধনী নামফলক ভেঙে দেয়া হয়েছিল। জাতীয় পার্টির সাংসদ লিয়াকত হােসেন খােকার নির্দেশে এই নামফলক ভাঙা হয় বলে অভিযােগ উঠে। এই ঘটনায় মহানগর আওয়ামী লীগের উদ্যোগে শহরে মানববন্ধন, বিক্ষোভ, কুশপুত্তলিকা দাহ করা হয়। এছাড়া জেলা পরিষদের পক্ষ থেকে সােনারগাঁয়েও উক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সামনে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ করা হয়েছিল। পাশাপাশি সোনারগাঁও উপজেলা যুবলীগের উদ্যোগে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ পালিত হয়েছে। সেখানে নারায়ণগঞ্জ-৩ আসনের আওয়ামী লীগের দলীয় সাবেক সাংসদ কায়সার হাসনাত, উপজেলা চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা মোশারফ হোসেন,মোগরাপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আরিফ মাসুদ বাবু, উপজেলা যুবলীগের সভাপতি রফিকুল ইসলাম নান্নু সহ কয়েক হাজার নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।

তিনি বলেন, আমি বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ প্রকাশে ঈমানী দায়িত্ব বলে মনে করি। জাতীয় পার্টির সাংসদ লিয়াকত হোসেন খোকার বিরুদ্ধে আওয়ামী লীগ ও এর অঙ্গসংগঠনের মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তারা তাদের বক্তব্যে যা বলেছেন আমি আমার নিউজে তা তুলে ধরেছি। এই নিউজ এমপি লিয়াকত হোসেন খোকার হয়তো পছন্দ হয়নি, তাই আমার বিরুদ্ধে এক নারীকে দিয়ে হুমকি প্রদানের মিথ্যে অপপ্রচার চালাচ্ছে। ভিডিও ফুটেজ দেখা যায়,এমপি লিয়াকত হোসেন খোকার ঘনিষ্ঠ সোনারগাঁও উপজেলা জাতীয় পার্টির প্রচার সম্পাদক সহিদ নামে এক ব্যাক্তি শিখিয়ে দিচ্ছে আর ওই নারী তার বক্তব্যে আমার নাম তুলে ধরছেন। প্রমাণ হিসেবে আমার নাম শিখিয়ে দেওয়ার সেই ভিডিও ফুটেজটি সংগ্রহে আছে।

সাংবাদিকতার নৈতিক বোধ থেকে, একজন সাংবাদিক সমাজের অনৈতিক কর্মকাণ্ডকে তার লেখনির মাধ্যমে দেশ ও জনগণের সামনে তুলে ধরবে এটাই স্বাভাবিক।
অন্যায়ের বিরুদ্ধে কলম ধরলে এখন জীবন হয় বিপন্ন। এটা একটি দেশের জন্য কখনোই ভালো হতে পারে না। কোনো সংবাদ ক্ষমতাবান প্রভাবশালীদের মনের মতো না হলেই সংবাদ কর্মীর বিরুদ্ধে চলে অপপ্রচার। সাংবাদিকদের দেওয়া হয় অপকর্মের আখ্যা। আমার বিরুদ্ধে যে অপপ্রচার করা হয়েছে তা স্বাধীন সংবাদ প্রকাশে গণমাধ্যমের সাংবাদিকদের জন্য যে হুমকির ইঙ্গিত তা বলার অপেক্ষা রাখে না।

আমি একজন সংবাদকর্মী হিসেবে মনে করি একজন সাংবাদিক
সত্য সংবাদ প্রকাশ করতে গিয়ে যখন হুমকি ও নির্যাতনের শিকার হয় তা রাষ্ট্রের জন্য অত্যন্ত লজ্জ্বার। কারণ দেশের সরকার ব্যবস্থাপনার চতুর্থ স্তম্ভ হলো সাংবাদিকতা। যার মাধ্যমে সমাজের প্রতিচ্ছবি প্রতিফলিত হয়। তবে সে চতুর্থ স্তম্ভ যখন রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক ক্ষমতাবানদের দ্বারা প্রভাবিত বা নির্যাতিত হয় তখন অন্যায় মাথা চাড়া দিয়ে উঠে।

সাংবাদিক শওকত ওসমান সরকার রিপন আরো বলেন, বিরোধী দলীয় (জাতীয় পার্টির) এমপি লিয়াকত হোসেন খোকার বিরুদ্ধে মানববন্ধন ও প্রতিবাদের সংবাদ প্রকাশ করায়, সাংসদ ও তার নেতাকর্মীরা উদ্দেশ্য প্রণীত ভাবে সমাজে আমার মানসম্মান ক্ষুন্ন করার জন্য আমার বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালাচ্ছেন।
এই ঘৃণিত কাজের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি।


এসএস/বি









সদ্য সংবাদ ডেস্কঃ 

সেন্সর বোর্ডে জমা পড়লো সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নিয়ে নির্মিত চলচ্চিত্র ‘টুঙ্গিপাড়ার মিয়া ভাই’। এ চলচ্চিত্রটি প্রযোজনা করেছে স্টোরি স্প্ল্যাশ মিডিয়া। এ প্রতিষ্ঠানটির স্বত্বাধিকারী পিংকি খান। তিনি দেশের খ্যাতনামা চলচ্চিত্র প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান শাপলা মিডিয়া ও শাপলা মিডিয়া ইন্টারন্যাশনালের কর্ণধার মো: সেলিম খানের মেয়ে। সেন্সর পেলে ১৬ই ডিসেম্বর মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে আগামি ১১ই ডিসেম্বর শুক্রবার দেশের সবগুলো সিনেমা হলে একযোগে চলচ্চিত্রটি মুক্তি পাবে। 

এ চলচ্চিত্রটির পরিচালক শাপলা মিডিয়া ও শাপলা মিডিয়া ইন্টারন্যাশনালের কর্ণধার মো. সেলিম খান। আর চিত্রনাট্য করেছেন, শামীম আহমেদ রনী।


চলচ্চিত্রটিতে একসঙ্গে কাজ করেছেন এই সময়ের জনপ্রিয় নবাগত নায়ক শান্ত খান ও নায়িকা দীঘি। গেলো সেপ্টেম্বর মাসে বেশ কয়েকদিন ঢাকায় চলচ্চিত্রটির শুটিং শেষে চাঁদপুরেও শুটিং করা হয় । এর আগে, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে স্বপরিবারে হত্যা ও নানা চক্রান্তের ঘটনা নিয়ে ‘আগস্ট ১৯৭৫’ চলচ্চিত্রের নির্মাণ কাজ শেষ হওয়ার পরপরই ‘টুঙ্গিপাড়ার মিয়া ভাই’ নির্মাণের ঘোষণা দেন শাপলা মিডিয়া ইন্টারন্যাশনালের কর্ণধার মো. সেলিম খান।

‘আগস্ট ১৯৭৫’ চলচ্চিত্রটির পূর্ণাঙ্গ ট্রেইলার প্রকাশের পর দেশব্যাপী ব্যাপক সাড়া পড়েছে। স্টোরি স্প্ল্যাশ মিডিয়ার ‘টুঙ্গিপাড়ার মিয়া ভাই’ চলচ্চিত্রটিও আলোড়ন সৃষ্টি করবে বলে জানিয়েছেন পরিচালক মো: সেলিম খান। গেল ৮ আগস্ট শনিবার স্টোরি স্প্ল্যাশ মিডিয়ার পক্ষ থেকে চলচ্চিত্রটির নাম পরিচালক সমিতিতে এন্ট্রি করা হয়। ছোট বেলা থেকেই জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যেভাবে নেতৃত্ব দিয়েছেন এবং সবার কাছে মিয়া ভাই হয়ে ওঠেন, তা ফুটে উঠবে এই চলচ্চিত্রে। ‘টুঙ্গিপাড়ার মিয়া ভাই’ চলচ্চিত্রের পরিচালক মো: সেলিম খান জানান, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকেচ ‘টুঙ্গিপাড়ার মিয়া ভাই’ চলচ্চিত্রে এমনভাবে তুলে ধরা হয়েছে, যা অনেকেরই অজানা। বঙ্গবন্ধু ছোট বেলা থেকেই নেতৃত্ব এবং বিশাল হৃদয়ের একজন মানবিক মানুষ হিসেবে সবার কাছে মিয়া ভাই নামে পরিচিত ছিলেন। সেই প্রেক্ষাপট ধরেই আমরা চলচ্চিত্রটির নামকরণ করেছি ‘টুঙ্গিপাড়ার মিয়া ভাই’। করোনা পরিস্থিতিসহ সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে সেন্সর সনদ প্রাপ্তি সাপেক্ষে ১৬ই ডিসেম্বর মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে আগামি ১১ই ডিসেম্বর শুক্রবার দেশের সবগুলো সিনেমা হলে একযোগে চলচ্চিত্রটি আমরা মুক্তি দিতে পারবো বলে আশা রাখছি। সেলিম খান আরো বলেন, বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে তার চলচ্চিত্র প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান শাপলা মিডিয়া এবং শাপলা মিডিয়া ইন্টারন্যাশনাল আরো বেশ কয়েকটি চলচ্চিত্র নির্মাণ করবে। সেগুলোর মাধ্যমে ‘আগস্ট ১৯৭৫’ চলচ্চিত্রের মতোই দর্শকরা সঠিক ইতিহাস জানতে পারবেন। যা বঙ্গবন্ধু এবং দেশের প্রয়োজনে নতুন প্রজন্মসহ সবার জানা উচিত বলেও মনে করেন শাপলা মিডিয়া ইন্টারন্যাশনালের কর্ণধার মো. সেলিম খান।

এদিকে, স্টোরি স্প্ল্যাশ মিডিয়ার পক্ষ জানানো হয়েছে ‘টুঙ্গিপাড়ার মিয়া ভাই’ চলচ্চিত্রের মাধ্যমে আয়ের যাবতীয় অর্থ বঙ্গবন্ধু কণ্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিশেষ উদ্যোগের সহযোগি হয়ে যার ‘জমি আছে, ঘর নাই’, এমন ব্যক্তিদের নিজ জমিতে গৃহনির্মাণ করে দেয়া হবে।


এসএস/বি

 

সদ্য সংবাদ ডেস্কঃ 

নারায়ণগঞ্জ জেলা পরিষদের কর্মকর্তা কর্মচারীরা চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেনের নামফলক ভাঙার প্রতিবাদে তিন দিনের কর্মবিরতি শুরু হয়েছে। দুপুরে এক ঘণ্টা কর্মবিরতি পালনকালে জেলা পরিষদের সহকারি প্রকৌশলী ওয়ালী উল্লাহ বলেন, সোনারগাঁয়ে জি আর ইন্সটিটিউশনে আমাদের চেয়ারম্যানের নামফলক স্থানীয় এমপি লিয়াকত হোসেন খোকা কর্তৃক ভেঙ্গে ফেলা হয়। এর প্রতিবাদে আজ আমরা কর্মবিরতি পালন করছি এবং পরবর্তী দুদিনও তা পালন করবো।


মঙ্গলবার (২৪ নভেম্বর) প্রথম দিনে কালো ব্যাচ ধারণ ও সকাল ১০ টা থেকে ১১ টা পর্যন্ত ১ ঘন্টার কর্মবিরতি পালন করেন কর্মকর্তা কর্মচারীরা। এ কর্মসূচী চলবে ২৬ তারিখ পর্যন্ত। 

বাকি দুইটি কর্মসূচীর মধ্যে রয়েছে সোনারগাঁয়ের জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্য লিয়াকত হোসেন খোকার বিরুদ্ধে নিন্দা প্রস্তাব গৃহীত ও জিডি করা এবং জেলা পরিষদের কাছে ক্ষমা না চাওয়া পর্যন্ত খোকার সকল অর্থ বরাদ্দ বন্ধ থাকবে। 

কর্মসূচীতে নারায়ণগঞ্জ জেলা পরিষদের সহকারী প্রকৌশলী মোঃ অলিউল্লাহের সভাপতিত্বে উপস্থিত ছিলেন প্রশাসনিক কর্মকর্তা রাশেদুজ্জামান, উচ্চমান সহকারী মীর মাহমুদা খানন, নমিতা মল্লিক, হিসাব রক্ষক মঞ্জুরুল আলম, চেয়ারম্যানের সিএ তাসলিমা আকতার, অফিস সহকারী মিলন হোসেন, হারুন অর রশিদ, সার্ভেয়ার রকিবুল হাসানসহ অন্যান্য কর্মকর্তা কর্মচারীবৃন্দ।


এসএস/বি

 



  

সদ্য সংবাদ ডেস্কঃ 
নারায়ণগঞ্জ জেলা ম্যাজিস্ট্রেট হতে ইস্যুকৃত বৈধ আগ্নেয়াস্ত্রের লাইসেন্স ২০২১ সালের জন্য নবায়নের তারিখ ঘোষণা করা হয়েছে। ২৩ নভেম্বর নারায়ণগঞ্জ ডিসি অফিস থেকে নবায়নের জন্য এক গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়।



গণবিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়,বৈধ আগ্নেয়াস্ত্র লাইসেন্সধারীগণকে অস্ত্রের ধরণ অনুযায়ী নবায়ন ফি এবং ভ্যাট বাবদ সরকারী কোষাগারে অর্থ জমা প্রদান পূর্বক নির্ধারিত তারিখের মধ্যে তাদের আগ্নেয়াস্ত্রের লাইসেন্স নবায়ন করতে বলা হয়েছে।
ফতুল্লা থানা -১ থেকে ৩ ডিসেম্বর পর্যন্ত, সদর থানা ৬ থেকে ১০ ডিসেম্বর পর্যন্ত, সিদ্ধিরগঞ্জ ও আড়াইহাজার থানা ১৩ থেকে ১৫ ডিসেম্বর পর্যন্ত,বন্দর থানা ১৭ ডিসেম্বর এবং সোনারগাঁও ও রূপগঞ্জ থানার ২০ থেকে ২৪ ডিসেম্বর অস্ত্র লাইসেন্স নবায়ন করা যাবে। নারায়ণগঞ্জের সহকারী কমিশনার আগ্নেয়াস্ত্র শাখা জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের কক্ষ নং-২০২ ফি ও ভ্যাট জমা প্রদানের জন্য বলা হয়েছে।
বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়- পিস্তল/রিভালবার এর লাইসেন্স নবায়ন ফি ১০ হাজার টাকা, বন্দুক, শটগান, রাইফেল এর লাইসেন্স নবায়ন ফি ৫ হাজার, আর্থিক প্রতিষ্ঠান বা ব্যাংক পর্যায়ে লং ব্যারেল অস্ত্রের লাইসেন্স নবায়ন ৫ হাজার টাকা, প্রতিষ্ঠান পর্যায়ে লং ব্যারেল অস্ত্রের লাইসেন্স নবায়ন ফি ১০ হাজার টাকা, ডিলার এবং মেরামতকারী প্রতিষ্ঠানের লাইসেন্স নবায়ন ফি ৫ হাজার টাকা, সেফ কিপিং প্রতিষ্ঠানের লাইসেন্স নবায়ন ফি ৩ হাজার টাকা।
আগ্নেয়াস্ত্র লাইসেন্স নবায়ন ফি বাবদ অর্থ কোড নম্বর ১-২২১১-০০০০-১৮৫৯ এবং নবায়ন ফি’র ১৫% ভ্যাট কোড নম্বর ১-১১৩৩-০০১০-০৩১১ খাতে সোনালী ব্যাংক লিমিটেড, নারায়ণগঞ্জ কর্পোরেট শাখায় জমা প্রদানের চালান কপি জমা দিতে হবে।
 সনদপ্রাপ্ত (সরকারি গেজেটে বিজ্ঞাপিত) মুক্তিযোদ্ধা, রাষ্ট্রীয় সাংবিধানিক পদে কর্মরত ব্যক্তিবর্গ ও জাতীয় বেতন স্কেলের ৬ষ্ঠ ও তদুর্ধ্ব গ্রেডভুক্ত চাকুরীরত/অবসরপ্রাপ্ত সরকারি ক্যাডার সার্ভিস কর্মকর্তাদের পিস্তল/রিভলবার/শটগান/রাইফেল এর লাইসেন্স ফি এবং নবায়ন ফি প্রযোজ্য হবে না। এক্ষেত্রে উপযুক্ত প্রমাণ পত্র সঙ্গে আনতে হবে।
  আগ্নেয়াস্ত্র লাইসেন্স নবায়নের সময় মূল লাইসেন্স, অস্ত্র ও গোলাবারুদ/গুলি সঙ্গে আনতে হবে।
অস্ত্র ও গোলাবারুদ/গুলি কোন উপযুক্ত কর্তৃপক্ষের নিকট জমা থাকলে জমার মূল রসিদ প্রদর্শন করতে হবে। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে আগ্নেয়াস্ত্র লাইসেন্স নবায়ন করা না হলে প্রচলিত বিধান অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। নারায়ণগঞ্জের বৈধ আগ্নেয়াস্ত্র লাইসেন্সধারীগণকে ২০২১ সালের নবায়নের জন্য ফি ও ভ্যাট নির্ধারিত তারিখে মধ্যে জমা দিতে হবে।


এসএস/বি



 


সদ্য সংবাদ ডেস্কঃ

নারায়গঞ্জের সোনারগাঁও উপজেলার পিরোজপুর ইউনিয়নের নয়াগাঁও গ্রামের কয়েক হাজার পরিবার ভূমিগ্রাসী, সন্ত্রাসী,অত্যাচার নিপীড়নে জিম্মিদশা নিয়ে জীবনযাপন করছে বলে অভিযোগ করেছেন স্থানীয় ভুক্তভোগীরা। 


প্রায়ই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটছে এই গ্রামে। উপজেলার নয়াগাঁও গ্রামের ভূমিদস্যু মৃত আব্দুল মালেকের ছেলে হাজী আলাউদ্দিন বাহিনীর অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে এলাকার সাধারণ মানুষ। সরকারি জমি দখল থেকে শুরু করে,জালিয়াতি করে অন্যের জমি জোরপূর্বক দখল, এলাকায় চাঁদাবাজিসহ বিভিন্ন কর্মকান্ডের সঙ্গে প্রত্যক্ষভাবে জড়িত এই বাহিনী।
বাহিনী প্রধানের নির্দেশেই সার্বিক তদারকিতে জোরপূর্বক জায়গা দখল কাজ করে থাকে তাঁর সহযোগীরা।

জানাযায়, প্রতিবন্ধি শাহাবুদ্দিন, মমতা, সেলিনা ও নুরুতুনসহ এই গ্রামের ভূমিহীনরা এক খন্ড ভূমি বরাদ্দের আবেদন করেছেন উপজেলা নির্বাহীকর্মকর্তা বরাবর। অপর দিকে কোম্পানির দালালি আর সন্ত্রাসী কর্মকান্ড চালিয়ে রীতিমত আঙ্গূল ফুলে কলাগাছ বনে গেছেন ভূমিদস্যু হাজী আলাউদ্দিন।

এই এলাকায় দ্রুত শিল্পায়নের কারনে বদলে যাচ্ছে এই গ্রামের ভৌত অবকাঠামো। প্রধান পেশা ছেড়ে বেকার হচ্ছেন কৃষকরা। কেউবা বেছে নিচ্ছেন গার্মেন্টসের চাকরিসহ অন্য পেশায় জড়িয়ে পড়ছেন।

সর্বশেষ গত শনিবার একই এলাকার প্রবাসী শাহাবুদ্দিনের জায়গা জোরপূর্বক দখল করতে গেলে বাঁধার মুখে পড়ে। তখনি ছয়জনকে কুপিয়ে আহত ও লুটপাট করার মতো ঘটনাও ঘটেছে বলে অভিযোগ উঠেছে।এই ঘটনায় সোনারগাঁও থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

সরেজমিনে দেখাযায়, ইউনিক পাওয়ার প্লান্ট, চিটাগাং বিল্ডার্স, সনি এস আর, কনকর্ড, এ প্লাস এগ্রোফার্ম, হামদার্দসহ বহু বড় বড় শিল্প গড়ে উঠছে এলাকার পিরোজপুর ও দুধঘটা মৌজায়। যার বেশিরভাগই গড়ে উঠেছে নদীর খাস জায়গা দখল করে এবং দরিদ্র কৃষকের জমি নাম মাত্র মুল্যে ক্রয় করে। 

বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই অনেকটা চাপের মুখে নিজেদের কৃষি জমি বা বসতবাড়ি কোম্পানির কাছে ছেড়ে দিয়েছেন এই গ্রামের মানুষ। অনেকের যায়গা না কিনেই বালি ভরাট করেছে ভূমিদস্যুরা। এ নিয়ে থানায় অভিযোগ আছে একাধিক।

 ভূমিদস্যু হাজী আলাউদ্দিনের আতঙ্কে ভুক্তভোগীরা ভয়ে মুখ খুলতে পারছেন না। এভাবেই দিন দিন ভুমিহীন হচ্ছেন নিরীহ মানুষ। অনেকেই আবার প্রতিবাদ করতে গিয়ে শিকার হচ্ছেন হামলার,মামলা এবং ঘটছে হত্যার মতো ঘটনা। 
ভূমি অফিসের দেয়া হিসেব মতে, গত ৫ বছরে এই এলাকার কৃষি জমি কমেছে অন্তত ৯০ ভাগ। বাকি ১০ ভাগ এখন অনাবাদি। এই গ্রামের মানুষদের আদি পেশা কৃষি কাজ, মৎস্য শিকার বদলে গিয়ে অনেকেই প্রবাসী হয়েছেন।

বিভিন্ন শিল্প প্রতিষ্ঠানের নজর এখন পিরোজপুর মৌজার ছোট গ্রাম নয়াগাঁওয়ে। নদী দখল, শত শত বিঘা সাধারন মানুষের কৃষি জমি, বাড়িঘর দখলের মহোৎসব চলে এই গ্রামে।এইকাজে সহযোগিতা করে স্থানীয় দালাল আর রাজনৈতিক প্রভাবশালীরা।

সাধারন মানুষের বাড়ী ঘর, কৃষি জমি দখলের অভিযোগ নিয়ে নানা সময় সংবাদ প্রকাশ হয়েছে গণমাধ্যমে। তবে কাজের কাজ হয়নি কিছুই। তাঁদের দখলদারিত্ব মারামারি চলছে যথারীতি। তাঁদের এই অপকর্মের মদদদাতা স্থানীয় রাজনৈতিক প্রভাবশালীদের বলে মনে করেন স্থানীয় সচেতন মহল। 

সোনারগাঁও ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ রফিকুল ইসলামের সাথে জমি দখলের ঘটনা জানতে চাইলে বলেন, জোরপূর্বক জমি দখলের অভিযোগ পেয়েছি তদন্তের মাধ্যমে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। 


এসএস/বি


 


সদ্য সংবাদ ডেস্কঃ 

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ের পিরোজপুর ইউনিয়নের নয়াগাঁও গ্রামে জোরপূর্বক জমি লিখে নিতে প্রতিপক্ষের উপর আবারও হাজী আলাউদ্দির নেতৃত্বে রাতভর তান্ডব চালিয়ে বাড়িঘর ভাংচুর ও লুটপাট করা হয়েছে। 



এসময় বৃদ্ধ ও শিশুসহ ছয়জন আহত হয়েছে। শনিবার রাতে এ ঘটনা ঘটে। আহতদের সোনারগাঁ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় সোনারগাঁ থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। 

সোনারগাঁ থানায় দায়ের করা অভিযোগ থেকে জানা যায়, উপজেলার পিরোজপুর ইউনিয়নের নয়াগঁও গ্রামের আলাউদ্দিনের সাথে একই এলাকায় সাহাবুদ্দিনের দীর্ঘদিন ধরে জমি সংক্রান্ত বিরোধ চলে আসছে। এ বিরোধের জের ধরে শনিবার রাতে আলাউদ্দিনের নেতৃত্বে ইয়ানবী, ইলিয়াস, বুলবুল, ফয়সাল, ফেরদৌস, দ্বীন ইসলাম, রিফাত, জুয়েল ও রাকিবসহ ২০-২৫ জনের একটি দল দেশীয় অস্ত্র, দা, টেঁটা, বল্লম, রামদা,হকিস্টিক, লোহার রড নিয়ে সাহাবুদ্দিনের বাড়িতে হামলা করে।

এসময় হামলাকারীরা বাড়িঘর, ভাংচুর ও লুটপাট করতে থাকে। এক পর্যায়ে সাহাবুদ্দিনের ষাটোর্ধ্ব শশুর মোঃসাত্তার ও আছমা বেগম তাদের বাঁধা প্রদান করলে তাদের পিটিয়ে আহত করে। এক পর্যায়ে আকলিমা, শান্ত ও কবিরকে মারধর করে। এসময় আকলিমার ১১ মাস বয়সী শিশু সন্তান সাইদকে কোল থেকে মাটিতে ছুড়ে ফেলে দেয় হামলাকারীরা। ঘটনার সময় ঘরে প্রবেশ করে আলমারিতে থাকা নগদ টাকা ও স্বর্ণলংকার লুট করে নিয়ে যায় বলে অভিযোগ উঠে। 



আহতদের ডাক চিৎকারে  আশ পাশের লোকজন এগিয়ে এলে হামলাকারীরা হুমকি দিয়ে চলে যায়। এ ঘটনায় আহত আকলিমা বেগম বাদী হয়ে শনিবার রাতে সোনারগাঁ থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন। 

আহত আকলিমা বেগম জানান, আলাউদ্দিন প্রভাবশালী হওয়ার কারনে টাকার দাপটে এ এলাকার মানুষ জিম্মি হয়ে পড়েছেন। জমি সংক্রান্ত বিরোধে অতর্কিতভাবে আমাদের বাড়িতে রাতের বেলায় হামলা করে আমার বাবা, মা ও শিশু সন্তানসহ ৬ জনকে পিটিয়ে আহত করে। 


অভিযুক্ত আলাউদ্দিনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, সাহাবুদ্দিনের পরিবার দ্বীন ইসলাম হত্যা মামলার আসামী। এ মামলার আপোষ মিমাংসার জন্য আমাদের হুমকি দিয়ে চাপ প্রয়োগ করে আসছে। মিমাংসার কথা অনুযায়ী টাকা দেওয়ার কথা থাকলেও তারা তালবাহানা করছে। এ বিষয়টি জানতে চাওয়ায় আমাদের উপর ক্ষিপ্ত হয়। 

সোনারগাঁ থানার ওসি মোঃ রফিকুল ইসলাম বলেন, হামলা ও ভাংচুরের ঘটনায় একটি অভিযোগ গ্রহন করা হয়েছে। তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


এসএস/বি

 



নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রতিনিধিঃ


নারায়ণগঞ্জ-৩ (সোনারগাঁও) আসনের জাতীয় পার্টির লাঙ্গল প্রতিকের সাংসদ লিয়াকত হোসেন খোকার কুশপুত্তলিকা দাহ করা হয়েছে। সোনারগাঁ জি আর ইনস্টিটিউশন স্কুল অ্যান্ড কলেজের মূল ফটকে জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেনের নামফলক ভেঙে দেওয়ার অভিযোগে মহানগর আওয়ামী লীগের মানববন্ধন ও বিক্ষোভ চলাকালে ওই কুশপুত্তলিকা দাহ করা হয়। 

২১ নভেম্বর শনিবার বিকেলে শহরের চাষাঢ়ায় নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সামনে এই মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।
জানা গেছে, ১৭ নভেম্বর মঙ্গলবার অভিভাবকদের সঙ্গে শিক্ষক ও গভর্নিং বডির সদস্যদের নিয়ে বিদ্যালয়ের ভিতরে বৈঠক করেন এমপি লিয়াকত হোসেন খোকা।
ঐদিন বিদ্যালয়ে প্রবেশের প্রধান ফটকের সামনে গেটে লাগানো জেলা পরিষদের অর্থায়নে উন্নয়ন কর্মসূচীর ভিত্তিপ্রস্তর, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেনের নামে নামফলক স্থাপন দেখে বেশ রাগান্বিত হন। এসময় উপস্থিত শিক্ষকদের উপরও চটে যান। আর আনোয়ার হোসেনের নাম কেন লেখা হয়েছে সেটা জানতে চান। এবং উত্তেজিত হয়ে ভেঙ্গে ফেলার নির্দেশ দেন। হইচৈই শুনে আশেপাশের অনেক লোকজন সেখানে জড়ো হয়।
এ ঘটনায় বিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ সুলতান মিয়া মিডিয়াকে জানান এমপি খোকা নির্দেশ দিয়ে চলে যাওয়ার জন্য গারিতে উঠতে না উঠতেই তার অনুগামী লোকজন হাতুরি,শাবল নিয়ে নামফলক ভেঙ্গে ফেলে। 

আর এই ঘটনার পর থেকেই নারায়ণগঞ্জ আওয়ামী লীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীরা জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্য লিয়াকত হোসেন খোকার এহেন কান্ডে অপমানিত বোধ করেন এবং তার বিরুদ্ধে ফুঁসে উঠতে শুরু করেন। তারা লিয়াকত হোসেন খোকাকে কোনোভাবেই ছাড় দিবেন না বলে ঘোষণা দেন।
নারায়ণগঞ্জ আওয়ামী লীগ নেতা কর্মীরা বলেন তার হঠকারিতা আমাদের আশ্চর্য করেছে।
তার এই কর্মকান্ডের জন্য প্রকাশ্যে আওয়ামী লীগের বর্ষিয়ান নেতা আনোয়ার হোসেন'র কাছে ক্ষমা চাইতে হবে। তাকে আর ছাড় দেয়া হবে না।
তাদের ধারাবাহিক কর্মসূচির প্রতিবাদ সভায় আজ লিয়াকত হোসেন খোকার কুশপুত্তলিকা দাহ করা হয়।

এসএস/বি


 


সদ্য সংবাদ ডেস্কঃ 


বোরো ধান,গম, ভুট্টা, সরিষা, চিনা বাদাম, শীতকালীন মুগ আবাদ ও উৎপাদন বৃদ্ধির লক্ষে নারায়ণগঞ্জ সোনারগাঁ উপজেলার সনমান্দী ইউনিয়ন কৃষকদের মাঝে বিনামূল্যে বীজ ও সার বিতরণ করা হয়েছে।

শনিবার (২১ই নভেম্বর) সনমান্দী ইউনিয়ন পরিষদের উদ্যোগে সনমান্দী ইউনিয়ন বঙ্গবন্ধু লাইব্রেরীর পাশের বালুরমাঠে আনুষ্ঠানিকভাবে কৃষকদের হাতে বীজ ও সার তুলে দেয়া হয়।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে কৃষকদের হাতে এসব তুলে দেন সনমান্দী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জাহিদ হাসান জিন্নাহ ।

এ সময় সাবেক ছাত্রলীগ নেতা সালাউদ্দিন সাজুর সঞ্চালনায় উপস্হিত ছিলেন উপজেলা সহকারী কৃষি অফিসার হাবিবুর রহমান হাবিব,সোনারগাঁ উপজেলা শ্রমিকলীগের সহ-সভাপতি কামরুল ইসলাম বাবুল,সনমান্দী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি হাজী জসীমউদ্দিন চৌধুরী, সিনিয়র আওয়ামী লীগ নেতা গোলজার প্রধান,সনমান্দী ইউনিয়ন আওয়ামী যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক সোলাইমান হোসেন সুজন,সনমান্দী ইউনিয়ন পরিষদের ১নং ওয়ার্ড সদস্য ফজলুল হক, মহিলা সংরক্ষিত সদস্য মহিলা মেম্বার শাহীনা আক্তার,ছাত্রলীগ নেতা মাসুদরানা,ফারহান পলাশ সহ প্রমুখ।


এসএস/বি


 


সদ্য সংবাদ ডেস্কঃ 

সোনারগাঁও পৌর এলাকায় নারায়ণগঞ্জ জেলা পরিষদের বরাদ্দকৃত অর্থে সোনারগাঁ জিআর ইন্সটিটিউট স্কুলের সীমানা প্রাচীর ও ফটক নির্মাণ কাজের উদ্বোধনের ফলক ভেঙে ফেলার প্রতিবাদে,নারায়ণগঞ্জ-৩ আসনের সংসদ সদস্য লিয়াকত হোসেন খোকার বিরুদ্ধে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। 

আজ শুক্রবার (২০ নভেম্বর) বিকালে নারায়ণগঞ্জ জেলা পরিষদের উদ্যোগে সোনারগাঁও পৌরসভার জিআর ইন্সটিটিউট স্কুলের সামনে এই মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

নারায়ণগঞ্জ জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম ভূঁইয়ার সভাপতিত্বে ও সদস্য মোস্তাফিজুর রহমান মাসুমের সঞ্চালনায় প্রতিবাদ কর্মসূচিতে বক্তব্য রাখেন, নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি আরজু রহমান ভূঁইয়া, সোনারগাঁও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা মোশারফ হোসেন, নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য মাহফুজুর রহমান কালাম, কেন্দ্রীয় আওয়ামী মহিলা লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নাসরিন সুলতানা ঝরা, সোনারগাঁও জিআর ইন্সটিটিউট স্কুলের গভর্নিং বডির সভাপতি নারায়ণগঞ্জ জেলা পরিষদের সদস্য ফারুক হোসেন, আলাউদ্দিন, মোস্তফা চৌধুরী, রোমান, সোনারগাঁও উপজেলা যুবলীগের সাবেক সভাপতি গাজী মুজিবুর রহমান, নারায়ণগঞ্জ জেলা যুব আইনজীবী পরিষদের সভাপতি ফজলে রাব্বী,নারী শ্রমিকলীগ নেত্রী নীলা আহমেদ নিশী প্রমুখ।

এসময় বক্তারা তাদের প্রতিবাদী বক্তব্যে বলেন, নারায়ণগঞ্জ জেলা পরিষদের বরাদ্দকৃত অর্থে নির্মিত সোনারগাঁ জিআর ইন্সটিটিউট স্কুলের মূল ফটকের পাশেই নির্মাণ কাজের উদ্বোধক হিসেবে নারায়ণগঞ্জ জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেনের নামে একটি ভিত্তি প্রস্তর নামফলক লাগানো হয়। 

যা গত ১৭ নভেম্বর মঙ্গলবার দুপুরে জাতীয় পার্টি এমপি লিয়াকত হোসেন খোকার নির্দেশে তার সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে ভেঙে ফেলে। বক্তারা বলেন, নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামী লীগের সংগ্রামী সভাপতি,নারায়ণগঞ্জ জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আমাদের শ্রদ্ধাভাজন নেতা আনোয়ার হোসেন ভাইয়ের নামে সরকারের উন্নয়ন নামফলক ভেঙ্গে দিয়েছে নারায়ণগঞ্জ ৩ আসনের এমপি লিয়াকত হোসেন খোকা।

আমরা এর তীব্র নিন্দা জানাই। খোকাকে হুশিয়ার করে নেতারা বলেন,আওয়ামী লীগের দয়ায় পরপর দু'বার এমপি হয়েছেন। আইন প্রণেতা হয়েও আপনি বেআইনি কাজ করছেন। সন্ত্রাসী কর্মকান্ডে নিজেকে জড়িয়ে নিজের রাজনৈতিক কফিনে শেষ পেরেকটিও মেরে ফেলেছেন।আসন্ন পৌরসভা নির্বাচনে পৌরবাসী আপনাকে এর সঠিক জবাব দিবে।

বক্তারা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে লিয়াকত হোসেন খোকার বিরুদ্ধে এই ন্যাক্কারজনক ঘটনার বিচার চেয়ে শাস্তি দাবী করেন।

তারা বলেন,বিএনপি যখন ক্ষমতায়,তখনো আমাদের দাবী আদায়ে, প্রতিবাদে রাজপথে থাকতে হতো।ক্ষমতায় বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সরকার, দুঃখের বিষয় এখনো আমাদের প্রতিবাদে, মানব বন্ধনে রাজপথেই থাকতে হচ্ছে। 

কিন্তু না,আমরা আর ব্যানার নিয়ে রাস্তায় থাকবো না, এখন প্রতিরোধের সময় এসেছে। এমপি খোকা যদি আমাদের নেতা আনোয়ার ভাইয়ের কাছে প্রকাশ্যে ক্ষমা না চান, তাহলে সোনারগাঁও আওয়ামী লীগ খোকার চামড়া তুলে ফেলবে।সেটাই দেখার অপেক্ষা আছি।

মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশে,নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগ, মুক্তিযোদ্ধা, একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি, সোনারগাঁও উপজেলা আওয়ামী লীগ এবং এর অঙ্গ সহযোগী সংগঠনের কয়েকহাজার নেতাকর্মীরা অংশ গ্রহণ করেন।


এসএস/বি

 


সদ্য সংবাদ ডেস্কঃ 


নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ জি আর ইনস্টিটিউশন স্কুল অ্যান্ড কলেজের মূল ফটকে নারায়ণগঞ্জ জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেনের নামফলক ভেঙে দেওয়ার বিরুদ্ধে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ কর্মসূচি পালন করে হয়েছে। 

আজ সকালে সোনারগাঁও পৌরসভা আওয়ামী লীগ ও সকল সহযোগিতা সংগঠনের আয়োজনে জিআর ইন্সটিটিউট স্কুল এন্ড কলেজের সামনে এই কর্মসূচি পালিত হয়।

মানববন্ধন ও প্রতিবাদ কর্মসূচিতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, নারায়ণগঞ্জ-৩ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুল্লাহ্ আল কায়সার হাসনাত। পৌরসভা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাবেক ইউপি সদস্য তৈয়ব আলীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এই মানববন্ধনে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন,

সোনারগাঁও উপজেলা চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা মোশারফ হোসেন,মোগরাপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আরিফ মাসুদ বাবু, উপজেলা পরিষদের সাবেক মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান কহিনূর ইসলাম রুমা, উপজেলা যুবলীগের সভাপতি রফিকুল ইসলাম নান্নু, সাবেক সভাপতি গাজী মুজিবুর রহমান, সোনারগাঁও উপজেলা একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির সভাপতি শেখ এনামুল হক বিদ্যুৎ । 

এসময় বক্তারা বলেন, নারায়ণগঞ্জ জেলা পরিষদ থেকে জিআর ইন্সটিটিউটের স্কুলের গেইট ও দেয়াল নির্মাণের জন্য ২০ লাখ টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। তাই ফলকে উদ্বোধক হিসেবে জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেনের নামফলক লাগানো হয়েছে। যেহেতু জেলা পরিষদের বরাদ্দকৃত অর্থে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অবকাঠামো উন্নয়ন হচ্ছে তাই নামফলকে জেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের নাম থাকাটাই স্বাভাবিক। বক্তারা বলেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দয়ায় বিনা ভোটে নির্বাচিত বিএনপি জামায়াত মিশ্রিত জাতীয় পার্টির সাংসদ লিয়াকত হোসেন খোকার নির্দেশে সেই নামফলক ভেঙে দিয়েছে। এসময় বক্তারা আরো বলেন, জাতীয় পার্টির বর্তমান এমপি লিয়াকত হোসেন খোকা, বিএনপি জামায়াতের প্রেতাত্মা হিসেবে কাজ করছে।  

শুরু থেকেই খোকা আওয়ামী লীগের দয়ায় এমপি হয়ে আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধেই ষড়যন্ত্র করে জননেত্রী শেখ হাসিনার বিপক্ষে অবস্থান নিয়েছেন। মৌলবাদীদের পক্ষে তার অবস্থান স্পষ্ট।

 সে এই নামফলক ভেঙে নিজের রাজনৈতিক দেউলিয়া প্রকাশ করেছে। তাই লিয়াকত হোসেন খোকাকে নারায়ণগঞ্জ জেলা তথা দেশের প্রবীণ আওয়ামী লীগ নেতা নারায়ণগঞ্জ জেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের আনোয়ার হোসেন ভাইয়ের কাছে জনসমক্ষে নিঃস্বার্থভাবে ক্ষমা চাইতে হবে। যদি সে তা না করে তাহলে আওয়ামী লীগ ও এর অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা ক্ষমা করবে না। দাঁত ভাঙ্গা জবাব দিবে। নামফলক ভাঙার বিরুদ্ধে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ কর্মসূচিতে সোনারগাঁও উপজেলা ও পৌরসভা আওয়ামী লীগ ও এর অঙ্গসংগঠনের হাজার হাজার নেতাকর্মী অংশগ্রহণ করেন।


এসএস/বি

 



সদ্য সংবাদঃ

 বাংলাদেশের সংবিধানে সকল নাগরিকের সম অধিকারের কথা বলা হলেও নানা কারনে পুরুষও বৈষম্যের শিকার হচ্ছে।

বিশেষত নারী নির্যাতন দমন, যৌতুক, ধর্ষণ ও পারিবারিক আইনে সবচে বেশি হয়রানি ও নির্যাতনের শিকার হচ্ছে পুরুষ।

বৃহস্পতিবার সকালে নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ে আন্তর্জাতিক পুরুষ দিবস উপলক্ষ্যে উপজেলা চত্তরে মানববন্ধন ও র‌্যালীতে এসব কথা বলেন, পুরুষ অধিকার ফাউন্ডেশন সোনারগাঁও শাখার নেতারা। পরে তারা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আতিকুল ইসলামের কাছে স্মারকলিপি দেন।

এসময়, বাংলাদেশ পুরুষ অধিকার ফাউন্ডেশন সোনারগাঁ শাখার সভাপতি সাংবাদিক শাহজালাল, সিনিয়র সহ-সভাপতি রুহুল আমীন, সাধারণ সম্পাদক ডাক্তার মহিউদ্দিন, সিনিয়র সহ-সম্পাদক এম এ আজিজ, সাংগঠনিক সম্পাদক এম এ জামান, সহ সাংগঠনিক সম্পাদক প্রকৌশলী মাহবুব আলম ও আইন বিষয়ক সম্পাদক এডভোকেট সবুরসহ অন্যরা উপস্থিত ছিলেন।


এসএস/বি

 



সদ্য সংবাদ ডেস্কঃ

নারায়ণগঞ্জ-৩ (সোনারগাঁও) আসনের সাংসদ লিয়াকত হোসেন খোকার নির্দেশে সোনারগাঁ জি আর ইনস্টিটিউশন স্কুল অ্যান্ড কলেজের মূল ফটকে নারায়ণগঞ্জ জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেনের নামফলক ভেঙে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। 

বিশেষ সূত্রে জানা যায়, মঙ্গলবার ১৭ নভেম্বর দুপুর ২টায় নারায়ণগঞ্জ -৩ আসনের সংসদ সদস্য লিয়াকত হোসেন খোকা সোনারগাঁ জি আর ইনস্টিটিউশন স্কুল এন্ড কলেজে প্রবেশের পরে স্কুলের মূল ফটকের পাশে জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেনের নাম দেখে বেশ রাগান্বিত হন। এসময় উপস্থিত শিক্ষকদের উপর তিনি চটে যান। আর আনোয়ার হোসেনের নাম কেন লেখা হয়েছে সেটা জানতে চান। আশেপাশের অনেক লোকজন সেখানে জড়ো হন। পরে তিনি চলে গেলে সাবিক নামে তার এক অনুগামী সেই ফলক ভেঙে ফেলে।

সোনারগাঁ জি আর ইনস্টিটিউশন স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ সুলতান বলেন, এমপি সাহেব স্কুলে এসে করোনাকালীন সময়ে যাতে শিক্ষার্থীদের কাছে কম টাকা রাখা হয় এটা গভর্নিংবডির কাছে জানানোর কথা বলেন। পরে স্কুলের গেটের পাশে জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেনের নামের ফলক দেখে তিনি বেশ রাগান্বিত হয়ে উঠেন।এসময় তিনি আমাকে অনেক ধমকা ধমকি করেন। এক পর্যায়ে তিনি ধমক দিয়ে বলেন, নাম ফলক (জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন) এখন ভাঙেন। রাজস্বখাতের টাকায় নাকি স্কুলের গেইট নির্মিত হয়েছে। তাই তিনি ভেঙে ফেলার নির্দেশ দিয়েছে। পরে তিনি চলে গেলে তার লোকজন এসে এই ফলক ভেঙে দেয়। স্কুলের গভর্নিংবডির সভাপতি ও নারায়ণগঞ্জ জেলা পরিষদের সদস্য ফারুক ভূঁইয়ার সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, জেলা পরিষদ থেকে জিআর ইন্সটিটিউটের স্কুলের গেইট ও দেয়াল নির্মাণের জন্য ২০ লাখ টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। ফলকে উদ্বোধক হিসেবে জেলা পরিষদের নাম থাকবেই। মনে হচ্ছে আসন্ন পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে একজন প্রার্থীকে সমর্থন দেইনি বলে তারা ক্ষুব্ধ হয়ে নামফলকটি ভেঙে দিয়েছে। এ বিষয়ে আমার জেলা পরিষদের সদস্যরা জেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের সাথে কথা বলবো।

নারায়ণগঞ্জ জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেনের সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, এডিভি উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় জেলা পরিষদ থেকে ২০ লাখ টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে জিআর ইন্সটিটিউটের স্কুলের গেইট ও দেয়াল নির্মাণের জন্য। উদ্বোধনে জেলা পরিষদের নাম ফলক থাকবে এটাই স্বাভাবিক। আড়াইহাজার, বন্দর, রূপগঞ্জ সহ জেলার সকল উপজেলায় সেটিই হচ্ছে।

তিনি বলেন, জাতীয় পার্টির এমপি লিয়াকত হোসেন খোকার নির্দেশক্রমে জোর পূর্বক এই নাম ফলক ভাঙা হয়েছে। কারো জোর চিরস্থায়ী থাকে না আগামীতে সময় আসছে লিয়াকত হোসেন খোকার এই জোর শেষ হওয়ার।

শামীম ওসমান থেকে শুরু করে নারায়ণগঞ্জ জেলার সকল এমপি আমাকে সম্মান দিয়ে কথা বলে, আমাকে সম্মান করে। খোকা এই নাম ফলক ভেঙে আওয়ামী লীগকে ছোট করেছে। আসন্ন সোনারগাঁও পৌরসভা নির্বাচনে লিয়াকত হোসেন খোকার স্ত্রী ডালিয়াকে মেয়র পদে নারায়ণগঞ্জ জেলা পরিষদের সদস্য ও জিআর ইন্সটিটিউট স্কুলের সভাপতি ফারুক আহম্মেদের সমর্থন না পেয়ে, সমর্থন আদায়ে ব্যর্থতায় ঈর্ষান্বিত হয়ে জেলা পরিষদের নাম ফলক টি ভেঙে দেয়ার মত ন্যক্কারজনক ঘটনাটি ঘটিয়েছে, যা খুবই নিন্দনীয়। আনোয়ার হোসেন বলেন, আমি বিষয়টি জেলা পুলিশ সুপার, জেলা প্রশাসক সহ ঊর্ধ্বতন ব্যক্তিদের জানিয়েছি। তারা এর তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন।


এসএস/বি

 


সদ্য সংবাদ ডেস্কঃ 


কায়সার ভাইয়ের সালাম নিন সেচ্ছাসেবকলীগে যোগ দিন রাজীব ভাইয়ের সালাম নিন সেচ্ছাসেবকলীগে যোগ দিন এই স্লোগানকে সামনে রেখে, 

শনিবার (১৫ নভেম্বর) রাত ৮ টায় সোনারগাঁ  উপজেলার কাঁচপুর ইউনিয়নে কুতুবপুর এলাকায় সেচ্ছাসেবকলীগ নেতা  রাজিব এর নিজ বাসায় শত শত নেতাকর্মী নিয়ে উঠোন বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

এসময়,সেচ্ছাসেবকলীগ নেতা রাজীব বলেন আমাদের নারায়ণগঞ্জ জেলার অভিবাবক নারায়ণগঞ্জ(৪) আসনের সংসদ সদস্য এ কে এম শামিম ওসমান সাথে নারায়ণগঞ্জ (৩)সোনারগাঁ আসনের সাবেক সাংসদ আব্দুল্লাহ আল কায়সার হাসনাত এর নির্দেশ ক্রমে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর হাতকে শক্তিশালী করার লক্ষে কাজ করবো এবং সেচ্ছাসেবকলীগ মানে সেবা শান্তি প্রগতি এই তিনটি বিষয় আমারা যদি মনে ধারন করে কাজ করি তা হলে আমাদের পিছপা হতে হবে না।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন,ঢাকা মহানগর আওয়ামী মুক্তিযুদ্ধলীগের সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক,বাংলাদেশ আওয়ামী মুক্তিযুদ্ধলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির নেতা,ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবকলীগের সংগ্রামী নেতা এ এইচ আজাদ খান। সরকারি তোলারাম কলেজ ছাত্রলীগের সাবেক তুখোড় ছাত্রনেতা, সোনারগাঁ থানা স্বেচ্ছাসেবকলীগের ভবিষ্যত কাণ্ডারী ও আগামীর কর্ণধার আলহাজ্ব রাজিবুল ইসলাম রাজিব।

এছাড়াও, ছাত্র ফেডারেশন বাংলাদেশ-সামসুল হক খান স্কুল এন্ড কলেজ শাখার সংগ্রামী সভাপতি,ডেমরা থানা স্বেচ্ছাসেবকলীগের নেতা তাজমিদ জামান জোহা সহ প্রমুখ।


এসএস/বি

November 17, 2020

 


 প্রতিনিধি,পটিয়া(চট্টগ্রাম)॥

দৈনিক সকালের সময়’র সম্পাদকসহ ৫ জনের বিরুদ্ধে অপকর্মে দন্ডপ্রাপ্ত পাপিয়ার সহযোগী মোস্তারী মোরশেদ স্মৃতির উদ্দশ্য প্রণোদিত পিটিশনের প্রতিবাদে পটিয়ায় মঙ্গলবার সকাল ১১টায় মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। রিভিউ মানবাধিকার বাস্তবায়ন সংস্থার পটিয়া উপজেলার সভাপতি এম নাছির উদ্দীনের সভাপতিত্বে মানববন্ধনে প্রধান অতিথি ছিলেন জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় ভাইস চেয়ারম্যান ও দক্ষিণ জেলার আহ্বায়ক এবং সাবেক পৌর মেয়র মুক্তিযোদ্ধা শামশুল আলম মাস্টার, প্রধান বক্তা ছিলেন দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও পটিয়া পৌরসভার আওয়ামী লীগ দলীয় সম্ভাব্য মেয়র প্রার্থী আইয়ুব বাবুল, বিশেষ অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরম দক্ষিণ জেলা সভাপতি ও পটিয়া প্রেস ক্লাব সাধারণ সম্পাদক আব্দুল হাকিম রানা, পটিয়া আইন কলেজের সাধারণ সম্পাদক ও পটিয়া আইনজীবী সমিতির সাবেক যুগ্ম সম্পাদক এডভোকেট খুরশীদ আলম, বীরমুক্তিযোদ্ধা গোলাম কিবরিয়া বাবুল, পটিয়া প্রতিভা ট্রাস্টের চেয়ারম্যান আবুল কালাম লিটন, পটিয়া প্রেস ক্লাব সহ সভাপতি ও পটিয়ানিউজ ডটনেট সম্পাদক এটিএম তোহা, পটিয়া পৌরসভা জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক মোস্তাক আহমদ, উপজেলা এলডিপির সাধারণ সম্পাদক ও রিভিউ অর্থ সম্পাদক আইয়ুব আলী, রিভিউ সহ সভাপতি রাশেদ কবির আরমান, সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আবু তাহের চৌধুরী, যুগ্ম সম্পাদক আব্দুল মোতালেব মনু মেম্বার, ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক মনির আহম্মদ, সদস্য মোস্তাফা কামাল, দক্ষিণ জেলা ছাত্রসেনার সভাপতি নুরের রহমান রণি, চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের সদস্য ও দৈনিক নয়াবাংলা বার্তা সম্পাদক জাবেদুর রহমান, উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা ও ছনহরা আওয়ামী লীগ দলীয় সম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থী ওসমান আলমদার, হালকা মোটর যান চালক ইউনিয়ন পটিয়ার সাধারণ সম্পাদক হারুনুর রশীদ, পটিয়া প্রেস ক্লাব প্রচার সম্পাদক কামরুল ইসলাম, দৈনিক আমাদের নতুন সময় প্রতিনিধি গিয়াস উদ্দীন, চন্দনাইশ সাংবাদিক ঐক্য ফোরাম সাংগঠনিক সম্পাদক আমিনুল ইসলাম রুবেল, দৈনিক জবাবদীহি চন্দনাইশ প্রতিনিধি ফারুকুল ইসলাম হৃদয়, খবর বাংলা-২৪ স্টাফ রিপোর্টার হেলাল উদ্দীন নিরব, পটিয়া কলেজ ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি এনামুর রশীদ,  ছাত্র নেতা সাঈদ মোকাররম, নীড় ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম রিয়াদ, উপজেলা বঙ্গবন্ধু শিশু কিশোর মেলা সাধারণ সম্পাদক মোবাশে^র আলম, দপ্তর সম্পাদক রবিউল হোসেন শাকিল, শিশু কিশোর মেলার মীর কাশেম মিরু, ছাত্র নেতা মোহাম্মদ তানভীর, মহিউদ্দীন, আকবর হোসেন প্রমুখ। প্রধান অতিথির বক্তব্যে জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় ভাইস চেয়ারম্যান বীরমুক্তিযোদ্ধা শামশুল আলম মাস্টার বলেন, সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মামলা হামলা করে অপরাধিরা রেহায় পাবে না। নিজের অপরাধ ঢাকতে কেউ যদি চালাকি করে সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে মামলা হামলা করে কলম বন্ধ করার অপচেষ্ঠা করেন তাহলে তার পরিনতি শুভ হবে না। অবিলম্বে সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করে সাংবাদিক সমাজের কাছে ক্ষমা চাইতে হবে। প্রধান বক্তার বক্তব্যে চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও পটিয়া পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামী লীগের সম্ভাব্য মেয়র প্রার্থী আইয়ুব বাবুল বলেন,মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সাংবাদিক বান্ধব নেত্রী,পাপিয়ার মত কিছু অপরাধি ও তার সহযোগিরা অপকর্ম করে বেড়াবে সাংবাদিকেরা সংবাদ প্রকাশ করলে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করবে এটা কোন অবস্থাতে মেনে নেয়া যায় না। পাপিয়ার অপরাধের কারণে শাস্তি হয়েছে সেখানে তার সহযোগি কিভাবে মামলা করে এই সাহস কে দিয়েছে? সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মামলা করে সরকারকে বিব্রত করার অপচেষ্টা করছেন চক্রটি। দ্রুত মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানান।

 


সদ্য সংবাদ ডেস্কঃ

করোনাকালে মানবিকতা ও পেশাদারিত্বের সাথে দায়িত্ব পালনের মাধ্যমে পুলিশ যেভাবে জনগণের পাশে দাঁড়িয়েছে, তাদের প্রতি সেবার হাত বাড়িয়েছে, যেভাবে সহযোগিতা দিয়েছে, তা দেশে-বিদেশে ব্যাপক প্রশংসিত হয়েছে।  মানুষও অকুণ্ঠচিত্তে এর প্রতিদান দিয়েছে। মানুষ তাদের মনের মণিকোঠায় পুলিশকে স্থান দিয়েছে। জনগণের প্রতি পুলিশের এ ধরনের মানবিক আচরণ ও সেবা অব্যাহত রাখতে হবে। 

ইন্সপেক্টর জেনারেল অব পুলিশ (আইজিপি), বাংলাদেশ ড. বেনজীর আহমেদ বিপিএম (বার) আজ রবিবার সকালে রাজারবাগ পুলিশ লাইন্সে বাংলাদেশ পুলিশ অডিটোরিয়ামে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশে (ডিএমপি) কর্মরত কনস্টেবল, নায়েক ও এএসআইদের সাথে মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য প্রদানকালে একথা বলেন। 

ডিএমপি কমিশনার মোহাঃ শফিকুল ইসলামের সভাপতিত্বে সভায় অতিরিক্ত আইজি ড. মোঃ মইনুর রহমান চৌধুরী, এসবি প্রধান মীর শহীদুল ইসলাম, সিআইডি প্রধান ব্যারিস্টার মাহবুবুর রহমান এবং অন্যান্য ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন। 

পুলিশ প্রধান বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আনুকূ‌ল্যে  গত ১০ বছরে বাংলাদেশ পুলিশ অনেক দূর এগিয়েছে। আমাদেরকে যেতে হবে আরও বহুদূর। 

মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে বাংলাদেশ দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছে। পুলিশ সড়ক-মহাসড়কে, শিল্প কারখানায় নিরাপত্তা দিতে সক্ষম হয়েছে। বিদেশীরা বাংলাদেশে বিনিয়োগ করছে, ব্যবসা করছে, দেশের অর্থনীতি এগিয়ে যাচ্ছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে বাংলাদেশকে আরও এগিয়ে নিতে হবে। 

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশকে বাংলাদেশ পুলিশের সবচেয়ে বড় ইউনিট ও 'ফেস অব পুলিশ' আখ্যায়িত করে আইজিপি বলেন, ডিএমপিতে কর্মরত পুলিশ সদস্যদের কর্মদক্ষতা ও আচরণের ওপর পুলিশের ভাবমূর্তি অনেকাংশে নির্ভর করে। 

আইজিপি দৃঢ় কন্ঠে বলেন, পুলিশের কোন সদস্য ড্রাগ গ্রহণ করবে না, ড্রাগের ব্যবসা করবে না, ড্রাগ ব্যবসায়ীদের সাথে সম্পর্ক রাখবে না। 

দুর্নীতির বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স পুর্নব্যক্ত করে আইজিপি বলেন, পুলিশে কোনভাবেই দুর্নীতি বরদাশত করা হবে না। যারা দুর্নীতি করে বড় লোক হতে চায়, তাদের জন্য পুলিশের চাকরি নয়। 

‌সেবাপ্রার্থী বা জনগণ‌কে কো‌নো প্রকার হয়রা‌নি বা নির্যাতন করা যা‌বে না। মানুষ‌কে ভাল‌বে‌সে হা‌সিমু‌খে সেবা দি‌তে হ‌বে, ব‌লেন আই‌জি‌পি।

তিনি বলেন, আমরা জনগণের কাছে যেতে চাই। সারাদেশকে ৬ হাজার ৯১২টি বিটে ভাগ করে বিট পুলিশিং চালু করা হয়েছে। এতে আইন-শৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণ সহজ হবে এবং সংশ্লিষ্ট বিটের আইন-শৃঙ্খলা সম্পর্কে বিস্তারিত জানা যাবে।

আইজিপি বলেন, পুলিশের নিয়োগ ও বদলির ক্ষেত্রে স্বচ্ছতা আনা হয়েছে। 

ড. আহমেদ বলেন, পুলিশের প্রতি জনগণের আস্থা বেড়েছে, পাশাপাশি তাদের প্রত্যাশাও অনেক। জনগণের সাথে ভাল আচরণ করতে হবে, মানবিক আচরণ করতে হবে। পাশাপাশি দৃঢ়তার সাথে আইন প্রয়োগ করতে হবে। 

তিনি বলেন, পুলিশ সদস্যদের কল্যাণে ইতোমধ্যে বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। চিকিৎসাক্ষেত্রে বৈপ্লবিক পরিবর্তন আনা হয়েছে। রাজারবাগ পুলিশ হাসপাতালকে বিশেষায়িত হাসপাতালে পরিণত করা হচ্ছে।  ঢাকায় আরেকটি পুলিশ হাসপাতাল নির্মাণ করা হবে। বিভাগীয় পুলিশ হাসপাতালগুলো আধুনিকায়ন করা হচ্ছে। পুলিশ সদস্যদের সন্তানদের লেখাপড়ার সুবিধার্থে ৮টি বিভাগীয় সদর দপ্তরে মানসম্পন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান স্থাপনের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। এসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বাংলা এবং ইংরেজি উভয় মাধ্যমে পড়াশোনার ব্যবস্থা থাকবে। 

আইজিপি বলেন, দেশ ও জনগ‌ণের জন্য কাজ করা এক‌টি বিরল সু‌যোগ ও সম্মা‌নের বিষয়। জনগ‌ণের জন্য আমরা যত বে‌শি কাজ কর‌বো, তা‌দের সা‌থে আমাদের সম্পর্ক  তত বে‌শি সুসংহত হ‌বে।

তিনি বলেন, শৃঙ্খলা বাহিনী হিসেবে পুলিশে শৃঙ্খলার ওপর সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিতে হবে। কল্যাণের সাথে শৃঙ্খলাকে মিশানো যাবে না। বক্ত‌ব্যে আই‌জি‌পি তাঁঁর পাঁঁচ‌টি মূল লক্ষ্য‌কে বিষদভা‌বে তু‌লে ধ‌রে এ লক্ষ্য অর্জ‌নে সকল‌কে নিষ্ঠার সা‌থে কাজ কর‌তে নি‌র্দেশ দেন। 

আইজিপি তাঁর বক্তব্যের শুরুতে করোনাকালে জনগণের সেবায় জীবন উৎসর্গকারী পুলিশ সদস্যদের আত্মার প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানান এবং তাদের শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন করেন।


এসএস/বি




সদ্য সংবাদ ডেস্কঃ

 জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে দেশীয় অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত হয়ে অন্যের জমি দখলের চেষ্টা করার অভিযোগ উঠেছে নারায়ণগঞ্জ জেলার সোনারগাঁও উপজেলার শম্ভুপুরা ইউনিয়নের কাজীর গাঁও গ্রামের রোস্তম আলীর ছেলে মোঃ সামছুল ইসলাম (৬৫) ও তার ছেলে মোঃ রাকিবুল ইসলাম রকি(৩৫) এবং স্ত্রী মোসাঃ ছালেহা বেগম (৫৫) এর  বিরুদ্ধে।

এঘটনায় উল্লেখিত নামসহ অজ্ঞাতনামা ৪/৫ জনের বিরুদ্ধে সোনারগাঁও থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন  ভুক্তভোগী নজরুল ইসলাম।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে ১১ নভেম্বর সকালে বিবাদী গন দেশীয় অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত হয়ে একই গ্রামের মৃত হাকিম বেপারীর ছেলে মোঃ নজরুল ইসলামের বাড়ীর টিনের বেড়া ভাংচুর করে এবং সীমানার পিলার উঠিয়ে ফেলে। এসময় দুর্বৃত্তরা অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে এবং প্রাননাশের হুমকি প্রদান করে।

ভুক্তভোগী নজরুল ইসলাম জানান, আমি নিরীহ মানুষ তাই এলাকার প্রভাবশালী ও অঢেল অর্থের মালিক সামছুল ইসলাম অনেক বছর ধরে আমার জমি অবৈধভাবে দখলের চেষ্টা চালাচ্ছে। 

ইতিপূর্বে দুর্বৃত্তরা, আমি সহ আমার পরিবারের সদস্যদের একাধিকবার মারধর করেছে। তারা একাধিকবার আমার বাড়ীর বেড়া ভাংচুর করেছে এবং আমার বিরুদ্ধে হরানি মুলক মিথ্যে মামলা সহ প্রান নাশের হুমকি প্রদাণ করেছে। আমি এ থেকে পরিত্রাণ পেতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপারের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।


এসএস/বি



সদ্য সংবাদ ডেস্কঃ 

 "সুশিক্ষা ও নৈতিকতা যেখানে এক সুতোয় গাঁথা" স্লোগানকে সামনে রেখে শিক্ষার মানোন্নয়নে সোনারগাঁ ক্যাপিটাল স্কুল এন্ড কলেজের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।


সোনারগাঁ ক্যাপিটাল স্কুল এন্ড কলেজের শিক্ষার মান ও শিক্ষার্থীদের মানোন্নয়নের লক্ষে, আল মদিনা সপিং মলের ৭ম তলায় প্রতিষ্ঠানটির সম্মেলন কক্ষে পরিচালনা পর্ষদ,অভিভাবক এবং সোনারগাঁও প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষদের নিয়ে এই মতবিনিময় ও আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়।

শনিবার (১৪ নভেম্বর) সকাল সাড়ে ১০টায় প্রতিষ্ঠানটির পরিচালনা পর্ষদের সদস্য মাছুম চৌধুরী সভাপতিত্বে এবং গজারিয়া কলিমুল্লা স্কুল এন্ড কলেজের প্রভাষক সাইফুর রহমান আহসানীর সঞ্চালনায়,

অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন প্রতিষ্ঠানটির পরিচালক সদস্য রাশেদুল ইসলাম, হোসেনপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ হাছান আলী, আদমপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সাবিনা সুলতানা, ভট্টপুর মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বি.আর.বিলকিছ, চৌধুরীগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শেখ মোখলেছুর রহমান সেলিম, মহজমপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সলিমুল্লাহ, লাধুরচর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক ও সোনারগাঁ শিক্ষক সমিতির সভাপতি শফিকুল ইসলাম, সোনারগাঁ ক্যাপিটাল স্কুল এন্ড কলেজের ভারপ্রাপ্ত প্রিন্সিপাল এবং ঢাকা সিটি কলেজের সহকারি অধ্যাপক মনসুর আলী।
এ সময় উপস্থিত ছিলেন সোনারগাঁয়ের শতাধিক সরকারি প্রাথমিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধান ও সোনারগাঁ ক্যাপিটাল স্কুল এন্ড কলেজ এর পরিচালনা পর্ষদবৃন্দ।

মতবিনিময় ও আলোচনা সভা চলাকালে প্রতিষ্ঠানটির প্রিন্সিপাল তাঁর বক্তব্যে বলেন,সোনারগাঁ ক্যাপিটাল স্কুল এন্ড কলেজ শিক্ষার্থীর শুধুমাত্র ভালো রেজাল্টের জন্যই কাজ করবে না,কাজ করবে সত্যিকারের মানুষ গড়ার কারিগর হিসেবেও।
সোনারগাঁয়ে অত্যাধুনিক প্রযুক্তিনির্ভর এবং শিক্ষার গুনগতমান ঠিকরেখে স্থাপিত হতে যাচ্ছে এই প্রতিষ্ঠানটি। ২০২১ সালের জানুয়ারিতে শিক্ষাবর্ষ প্রথম শ্রেণী থেকে নবম শ্রেণী পর্যন্ত ছাত্র-ছাত্রী ভর্তির মধ্য দিয়ে প্রতিষ্ঠানটির যাত্রা শুরু করবে বলে জানান এবং কলেজও প্রস্তাবিত রয়েছে।

আাপনাদের সার্বিক সহযোগিতা ও তত্ত্বাবধানে দিনে দিনে এই প্রতিষ্ঠানটি অনেক বেশি উন্নতির দিকে ধাবিত হবে। মেধা মননে প্রত্যেক শিক্ষার্থীর কাছ থেকেই ফলাফলও আসবে খুবই সন্তোষজনক। তাছাড়া এই প্রতিষ্ঠানে পড়াশুনার খরচও অভিবাবকদের আয়ত্বের মধ্যেই থাকবে।মেধাবী ও দরিদ্র শিক্ষার্থীদের জন্য বিশেষ সুযোগের কথাও তিনি তাঁর বক্তব্যে তুলে ধরেন। সেই সাথে অত্র প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের শতভাগ ভালো ফলাফল লাভ হবে বলেও তিনি চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দেন। স্কুল সংক্রান্ত কোনো তথ্যের জন্য সার্বক্ষণিক নির্দ্বিধায় প্রতিষ্ঠানটির কতৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার জন্য বলেন।
তিনি বলেন,নিয়মিত সাপ্তাহিক,পাক্ষিক ও সেমিস্টার পরীক্ষা গ্রহন এবং সঠিক মূল্যায়নের মাধ্যমে অভিবাবকদের অবহিত করন সহ, হবে ত্রৈমাসিক অভিভাবক ও মতবিনিময় সভা।
এবং ক্লাসের পড়া ক্লাসেই সম্পন্ন করা হবে।

তাঁর বক্তব্যে বলেন, আজকের শিশুরা আগামী দিনের ভবিষ্যৎ। কাজেই এদেরকে সুশিক্ষায় শিক্ষিত করে তোলা খুবই জরুরি। শুধু শিক্ষকরাই নয়, অভিভাবকদেরকেও তাদের সন্তানদের শিক্ষার ব্যাপারে সজাগ থাকার জন্যও আহ্বান জানান তিনি। সেই সাথে শিশু বয়স থেকেই যাতে তারা মাদক, জঙ্গি ও সন্ত্রাসের দিকে আকৃষ্ট না হয় সেদিকে কঠোর নজরদারি রাখার জন্যও অভিভাবকদের অনুরোধ করেন।


এসএস/বি



সদ্য সংবাদ ডেস্কঃ

 নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ উপজেলার জামপুর ইউনিয়নে কাজীপাড়া এলাকায় জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে ৫ জনকে কুপিয়ে ও পিটিয়ে আহত করেছে প্রতিপক্ষের লোকজন।

এ ঘটনায় জমির মালিক সাংবাদিক কাজী নেওয়াজ শরীফ  বুধবার দুপুরে বাদী হয়ে সোনারগাঁ থানায় ৩ জনকে আসামী করে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।

জমির মালিক সাংবাদিক কাজী নেওয়াজ শরীফ সোনারগাঁ থানায় লিখিত অভিযোগে উল্লেখ করেন, বৃহস্পতিবার  দুপুর আনুমানিক ১২ ঘটিকার সময় উপজেলা জামপুর ইউনিয়নের কাজীপাড়া  এলাকায় আমার নিজ বাড়ির সম্পত্তির মধ্যে টিন দিয়ে বেড়া দিয়ে দখল করার চেষ্টা করে একই এলাকার মৃত কাজী ইব্রাহিম মিয়ার  ছেলে কাজী ফয়েজ আহমেদ,বাছেদ সহ অজ্ঞাত আরো ২/৩ জন।

আমি ও আমার পরিবারের লোকজন বাধা দিলে পূর্ব-পরিকল্পিত ভাবে ৩/৪ জনের একটি সংঘবদ্ধ দল আমাকে ও আমার পরিবারের সকল সদস্যদের উপর অতর্কিত হামলা চালায়। এসময় তারা আমাদেরকে কুপিয়ে ও পিটিয়ে মারাত্মক জখম করে, তাদের বাধা দিতে আসলে আমার ভাবি ও ভাতিজিকে তারা শ্লীলতাহানি করে তাদের সাথে থাকা স্বর্নের চেইন এবং আমার সাথে থাকা রবি কোম্পানির প্রায় ২ লক্ষ টাকা ছিনিয়ে নিয়ে যায়।

জানতে চাইলে কাজী নেওয়াজ শরীফ  বলেন, আমাদের ডাক-চিৎকারে এলাকাবাসী এগিয়ে আসলে প্রতিপক্ষের লোকজন প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে পালিয়ে যায়, এলাকাবাসী আমাদেরকে চিকিৎসার জন্য সোনারগাঁ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করায়। তিনি আরো বলেন, থানায় অভিযোগ করার পরেও অভিযোগ তুলে নিতে তাদের সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে আমাদেরকে হুমকি দিচ্ছে।

জানতে চাইলে সোনারগাঁ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) রফিকুল ইসলাম বলেন,এঘটনায় একটি অভিযোগ নেয়া হয়েছে, তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেবো।


এসএস/বি

 




সদ্য সংবাদ ডেস্কঃ

 আজ ১০ নভেম্বর বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরাম (বিএমএসএফ) সোনারগাঁও উপজেলা শাখা’র আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়েছে। সোনারগাঁ উপজেলা আহ্বায়ক কমিটির অনুমোদন দেন বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরামের  প্রতিষ্ঠাতা ও সদস্য সচিব আহমেদ আবু জাফর।

দৈনিক বাংলাদেশের আলোর নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি শেখ এনামূল হক বিদ্যুৎ কে আহ্বায়ক ও দৈনিক আমাদের অর্থনীতির সোনারগাঁও উপজেলা প্রতিনিধি মোঃ মাজহারুল ইসলাম রাসেলকে সদস্য সচিব ও যুগ্মআহবায়ক (১ম) করা হয়েছে ভোরের দর্পণ পত্রিকার সোনারগাঁ উপজেলা প্রতিনিধি শওকত ওসমান সরকার রিপন ও ঢাকা প্রতিদিনের উপজেলা প্রতিনিধি ফারুকুল ইসলামকে (২য়) যুগ্মআহ্বায়ক করে ১৫ সদস্য বিশিষ্ট আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়। 

উপজেলা আহ্বায়ক কমিটির অন্যান্য সদস্যরা হলেন, রাকিবুল হাসান (এক্সপ্রেস নিউজের ষ্টাফ রিপোর্টার), নির্মল কুমার সাহা (মুক্তখবর), সামির সরকার (দৈনিক রুপালী বাংলাদেশ), জুয়েল (সমাচার দর্পণ), নূর নবী (নারায়ণগঞ্জ টিভি), মিঠু (সোনারগাঁও সময়), লতিফুর রহমান দিপু (ভোরের চেতনা), মকবুল আলম রতন (পি বাংলা), সাইফুল ইসলাম (সিএস বিডি২৪.কম), শফিকুল ইসলাম ইমাম (দৈনিক মাতৃজগত) ও সজীব আহমেদ (বিশ্ব মানচিত্র)।


এসএস/বি






সদ্য সংবাদঃ নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁওয়ে একটি গরুর খামারে ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। ডাকাতরা এসময় নিরাপত্তা প্রহরীর হাত-পা বেঁধে গরুর খামার থেকে ৯টি গরু লুট করে নিয়ে যায়।

 গত (৬ নভেম্বর)শুক্রবার দিবাগত রাতে এ ঘটনা ঘটে। এই ঘটনায় খামারের মালিক রফিক মিয়া বাদী হয়ে সোনারগাঁও থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন। পুলিশ অভিযান চালিয়ে ৪ ডাকাতকে আটক ও একটি গরু উদ্ধার করেছে।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার পিরোজপুর ইউনিয়নের রফিক মিয়া তাঁর গ্রামের আগমন সিএনজি ষ্টেশনের পিছনে ছোট পরিসরে একটি গরুর খামার গড়ে তুলেন। ওই খামারে গত শুক্রবার রাতে কোন এক সময়ে এক দূর্ধর্ষ ডাকাতি হয়। ডাকাতদল স্থানীয় একটি গাড়ির গ্যারেজের নিরাপত্তা প্রহরী সোহরাব হোসেনকে মারধর করে হাত-পা বেঁধে রাখে,পরে রফিক মিয়ার খামার থেকে ৯ টি গরু ডাকাতি করে নিয়ে পালিয়ে যায়। আহত অবস্থায় নিরাপত্তাপ্রহরী সোহরাব হোসেনকে শনিবার সকালে উদ্ধার করে স্থানীয় একটি ক্লিনিকে চিকিৎসা দেয়া হয়।

এলাকাবাসী ও পুলিশসূত্রে জানা গেছে, গরুর খামারের মালিক রফিক মিয়ার থানায় দায়ের করা অভিযোগের প্রেক্ষিতে বিভিন্ন জায়গায় অভিযান চালিয়ে রোববার রাত ৯টায় উপজেলার আলাপদী গ্রামের মৃত. ইদ্রিস আলী ছেলে তকবির (৩৫), ছোট সাদীপুর গ্রাম থেকে শফিকুল ইসলামের দুই ছেলে জুয়েল-(৩০) ও শুভ(২২) এবং রফিকুল ইসলামের ছেলে সুমন(৩২) কে আটক করে। তাদের জিজ্ঞাসাবাদের পর তাদের হেফাজতে থাকা একটি গরু উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে।

এই ঘটনায় পুলিশ গ্রেফতারকৃত ৪ ডাকাতকে সোমবার জেলা আদালতে প্রেরণ করে এবং ডাকাত তকবির ও জুয়েলকে অন্যান্য সহযোগী আসামীদের আটকের জন্য ৫দিনের রিমান্ড চেয়ে আবেদন করে। 

এদিকে খামারের মালিক রফিক মিয়া জানান, শুক্রবার রাতে গরুর খাবার দিয়ে ঘুমিয়ে পড়লে শনিবার ভোরে তাঁর এক আত্মীয়র ফোনে জানতে পারেন খামারে ডাকাতি হয়েছে,নিরাপত্তা প্রহরীর চিৎকারের শব্দ শোনা যাচ্ছে।এ খবর শুনে খামারের দরজার তালা ভেঙ্গে দেখি আমার খামারের ৯টি গরু নেই। তিনি বলেন, আমার এতো বছরের কষ্টের আয় দিয়ে গড়া খামারের ৯ টি গরুর দাম প্রায় ১০ লাখ টাকা। আমি আজ একেবারে নি:স্ব হয়ে গেছি।

স্থানীয় এলাকাবাসী ও পুলিশসুত্রে আরও জানা গেছে, আটককৃত আসামীরা ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কসহ বিভিন্ন এলাকায় চুরি, ডাকাতি, ছিনতাইসহ বিভিন্ন নারীদেরকে ইভটিজিং ও মাদক ব্যবসা করে থাকে। আসামীরা এলাকায় প্রভাবশালী বিধায় কেউ তাদের ভয়ে মুখ খুলতে চায় না। এদের অত্যাচারে সাদিপুরসহ আসপাশের কয়েকটি  গ্রাম। 

এব্যাপারে সোনারগাঁও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রফিকুল ইসলাম জানান, একটি অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ অভিযান চালিয়ে ৪জনকে আটক করে জেলা আদালতে প্রেরণ করেছে।


এসএস/বি

 সদ্য সংবাদ ডেস্কঃ

নারায়ণগঞ্জ জেলায় সোনারগাঁও উপজেলার মোগরাপাড়া ইউনিয়নের শুক্কুরদী গ্রামের রকিবুল হাসানের পৈত্রিক বসতবাড়ী তার মৃত দাদা তোলেমান হোসেনের নামে জাল মৃত্যু সনদ বানিয়ে জোরপূর্বক দখলে নেওয়ার পায়তারা চালাচ্ছেন জৈনক শহিদুল ইসলাম গং। এঘটনায় ভুক্তভোগী রাকিবুল হাসান থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। 


অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, মোগরাপাড়া ইউনিয়নের শুক্কুরদী গ্রামের শহিদুল ইসলাম গং দীর্ঘদিন যাবত রকিবুল হাসান ও তার পরিবারের উপরে বিভিন্ন ভাবে অত্যাচার ও অবৈধভাবে তাদের সম্পত্তি দখলে নেয়ার চেষ্টা করে যাচ্ছে। গত ২ নভেম্বর সকালে শহিদুল ইসলাম গং তার সন্ত্রাসী দলবল নিয়ে রকিবুল হাসান ও তার পরিবারের উপরে হামলা ও মারধর করে তাদের বসতবাড়ীতে জোরপূর্বক ঘর নির্মাণ করতে গেলে ভুক্তভোগীরা স্থানীয় ইউপি সদস্যদের মাধ্যমে নির্মাণকাজ বন্ধ করে।

এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ বিষয়টি মীমাংসার জন্য বসলেও শহিদুল ইসলাম গং অনুপস্থিত ছিলো।

পরবর্তীকালে ৪ নভেম্বর সকালে শহিদুল ইসলাম গং ও তার সন্ত্রাসী বাহিনী নিয়ে ভুক্তভোগীদের উপর অতর্কিত হামলা চালিয়ে আহত এবং বাড়িঘর ভাঙচুর করে। এমতাবস্থায় তাদের আত্মচিৎকারে শহীদুল ইসলাম গং তার সন্ত্রাসী বাহিনী পালিয়ে যায়। যাওয়ার সময় শহীদুল ইসলাম হুমকি দিয়ে যায় যে, ভবিষ্যতে এই সম্পত্তি জোরপূর্বক দখলে নিবে এবং দখল করতে না দিলে তাদেরকে প্রানে মেরে লাশ গুম করে রাখবে। সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, মোগরাপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের প্যাড ও স্বাক্ষর জাল করে রকিবুলের দাদা মৃত তোলেমান হোসেনের ভূয়া মৃত্যু সনদ বানিয়ে রকিবুল হাসান ও তার আপন চাচা মোহাম্মদ আলীর বসতবাড়ী জোরপূর্বক দখলে নিতে চাচ্ছেন শহীদুল ইসলাম ও তার নিজস্ব সন্ত্রাসী বাহিনী। 

অভিযোগের বিষয়ে তদন্তকারী কর্মকর্তা এস আই ইয়াউর জানান, এই বিষয়ে আমি ঘটনাস্থলে উপস্থিত হইয়া উভয় পক্ষকে শান্ত থেকে আইন শৃংখলার অবনতি না করার জন্য অনুরোধ করেছি । অভিযোগের বিষয়ে সোনারগাঁও থানার অফিসার ইনচার্জ রফিকুল ইসলাম জানান, অতি দ্রুত সুষ্ঠ তদন্তের মাধ্যমে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এসএস/বি

 সদ্য সংবাদ ডেস্কঃ

সোনারগাঁও থানায় মামলা, জিডি এবং পুলিশ ক্লিয়ারেন্স নিতে আসা মানুষের কোন দুর্ভোগ পোহাতে হবে না। কেন হবেনা এ বিষয়ে জানতে চাইলে সোনারগাঁ থানার ওসি রফিকুল ইসলাম বলেন,



আমার ঢাকা রেঞ্জের উপমহাপরিদর্শক (ডিআইজি) হাবিবুর রহমান বিপিএম-বার পিপিএম এর নির্দেশক্রমে এবং নারায়ণগঞ্জ জেলার পুলিশ সুপার জায়েদুল আলম পিপিএম এর নির্দেশনায় সোনারগাঁ থানার মানুষ যাতে দালালচক্র বা অন্য কোনোভাবে প্রতারণার শিকার না হয় তার জন্য আমরা সতেষ্ট আছি। ব্যানারও থানার মূল ফটকে ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে। থানায় ঢুকলে যে কারো চোখে পড়বে এটা। এতে করে থানায় মামলা ও জিডি এবং পুলিশ ক্লিয়ারেন্স নিতে আসা মানুষের কোন দুর্ভোগ পোহাতে হবে না।

দেশের মানুষের জানমাল রক্ষা থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ নিরাপত্তা নিশ্চিত করে বাংলাদেশ পুলিশ। কাজের বেলায় জনকল্যাণকেই প্রাধান্য দেয়া হবে,থানায় কোনো সুবিধাবাদি বা দালালের সুযোগ নেই । সাধারণ মানুষের জন্য পুলিশের দরজা সবসময় উন্মুক্ত থাকবে । সর্বোচ্চ আন্তরিকতা ও সততার সাথে কাজ করবে পুলিশ ।

তিনি বলেন, সমাজ থেকে অপরাধ দূর করতে হলে সবার আগে প্রয়োজন পারিবারিক উদ্যোগ। পারিবারিক শিক্ষাই পারে একজন সন্তানকে আদর্শ নাগরিক হিসেবে গড়ে তুলতে। সমাজে অপরাধ দমনে পুলিশ সদা তৎপর। তাই পুলিশকে তথ্য দিয়ে সহযোগিতা করুন।

এসএস/বি

যোগাযোগের ফর্ম

Name

Email *

Message *

Theme images by merrymoonmary. Powered by Blogger.
Javascript DisablePlease Enable Javascript To See All Widget