করোনা আক্রান্ত রোগীর দমের জন্য অক্সিজেন পৌঁছে দিচ্ছেন অদম্য এ এইচ এম মাসুদ দুলাল।

 

নিজস্বপ্রতিবেদকঃ


নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁওয়ে দিন দিন বাড়ছে করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা। শঙ্কট তৈরি হচ্ছে অক্সিজেনের। করোনাকালীন সময়ে এ উপজেলায় অক্সিজেন সহায়তা দিতে কাজ করছে আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা উপকমিটির সদস্য এ এইচ এম মাসুদ দুলালের "ফ্রী অক্সিজেন ব্যাংক সার্ভিস" নামের একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন। ফোন করলেই বিনামূল্যে অক্সিজেন সেবা পৌঁছে দিচ্ছেন তারা।



ফ্রী অক্সিজেন সেবা বাস্তবায়নে ও সার্বিক সহযোগিতা দিয়ে যাচ্ছে সোনারগাঁও জার্নালিষ্ট ক্লাব নামের একটি সাংবাদিক সংগঠন। ফোন করলেই করোনা রোগীর বাড়িতে অক্সিজেন সিলিন্ডার নিয়ে হাজির হচ্ছেন তারা। সেটা রাত হোক কিংবা দিন।

করোনা অথবা বার্ধক্য জনিত রোগে আক্রান্ত শ্বাসকষ্টে ভুগছেন এমন রোগীর ওখান থেকে ফোন আসলেই "ফ্রী অক্সিজেন ব্যাংক সার্ভিস" টিমের সদস্যরা মোটর সাইকেলে সিলিন্ডার নিয়ে ছুটে যান রোগীর কাছে। 

যেসব করোনা আক্রান্ত রোগীর পরিবারের সদস্যরা কোথাও পাচ্ছিলেন না অক্সিজেন সিলিন্ডার,এমন তাদের কাছ থেকে ফোন পেয়ে সিলিন্ডার নিয়ে হাজির হচ্ছেন এ এইচ এম মাসুদ দুলাল'র "ফ্রী অক্সিজেন ব্যাংক সার্ভিস" টীমের সদস্যরা।

দিন আর রাত নেই, করোনা রোগীর খবর পেলেই তারা ছুটেন অক্সিজেন সেবা নিয়ে। কখনো রিকশা, কখনো মোটর সাইকেল বা কখনো সিলিন্ডার কাঁধে নিয়েই ছুটে যান রোগীর কাছে।  ফ্রী অক্সিজেন ব্যাংক সার্ভিস টিমের এ ফ্রি অক্সিজেন সেবায় অনেক করোনা রোগী এখন নিতে পারছেন শান্তির নিঃশ্বাস। 

রোগীর স্বজনরা জানান,এ অবস্থায় অক্সিজেন সিলিন্ডার পাওয়া একটা দুরূহ ব্যাপার,আমাদের জন্য সেটা সহজলভ্য করে দিয়েছেন এ এইচ এম মাসুদ দুলাল'র ফ্রী অক্সিজেন ব্যাংক সার্ভিস" টিম। 

২৯ জুলাই থেকে শুরু হওয়া ফ্রী অক্সিজেন ব্যাংক সার্ভিস এর পক্ষ থেকে গতকাল ৩ আগস্ট পর্যন্ত এই ৪ দিনে সোনারগাঁও উপজেলার বিভিন্ন এলাকার মোট ১৫ জন করোনা ও একজন বার্ধক্য জনিত রোগে আক্রান্ত গুরুতর শ্বাসকষ্ট রোগীকে সম্পূর্ণ ফ্রীতে তাদের বাড়িতে অক্সিজেন পৌঁছে দিয়েছেন।

এই সেবায় সার্বিক সহযোগিতায় থাকা এ এইচ এম মাসুদ দুলাল ও সোনারগাঁও জার্নালিষ্ট ক্লাবকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন সোনারগাঁও উপজেলা বাসী।

"ফ্রী অক্সিজেন ব্যাংক সার্ভিস" টিমের টিম লিডার সোনারগাঁও জার্নালিষ্ট ক্লাবের সভাপতি শেখ এনামূল হক বিদ্যুৎ বলেন,

মানব সেবাই পরম ধর্ম। করোনার অতিমারীতে বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জনতার পাশে দাড়ানোর যে নির্দেশ দিয়েছেন তা বাস্তবায়নে সোনারগাঁওবাসীর জন্য অক্সিজেন সেবা নিয়ে এসেছেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ'র তথ্য ও গবেষণা উপ-কমিটির সদস্য এ এইচ এম মাসুদ দুলাল। এটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ সময়োপযোগী একটা কাজ। আর আমরা তা বাস্তবায়ন করছি।তার সার্ভিক সহযোগিতায় আমরা রোগীদের  অক্সিজেন সেবা পৌছে দিচ্ছি। জনগণের মাঝে এখন আশার সঞ্চার ঘটেছে যে অক্সিজেনের ঘাটতিতে সোনারগাঁওয়ে আর কোন রোগীর কষ্ট পেতে হবে না। আমার টীমের ছেলেরা উৎসাহিত হচ্ছে প্রাণবন্ত কাজ করছে,এবং মানব কল্যাণে এটা চলমান থাকবে।



উপজেলার কাঁচপুর ইউনিয়নের ভারগাঁও এলাকার মমতাজ বেগম (৫৭) নামে করোনা আক্রান্ত নারীর শরীরে অক্সিজেনের মাত্রা কমে গিয়ে শ্বাসকষ্ট দেখা দেয়। তার স্বজনরা কোথাও অক্সিজেন না পেয়ে "ফ্রী অক্সিজেন ব্যাংক সার্ভিস এর সদস্যদের ফোন করে বিষয়টি জানান। পরে "ফ্রী অক্সিজেন ব্যাংক সার্ভিস" এর সদস্যরা দ্রুত সময়ের মধ্যে আক্রান্ত নারীর বাড়িতে অক্সিজেন সিলিন্ডার পৌঁছে দেয়।

 পরদিন ওই নারীর ছেলে সোহেল রুমী তার নিজের ফেসবুক আইডি থেকে  একটি স্ট্যাটাস দেন। সেখানে তিনি বলেন, "আজ আমার মায়ের জীবনটা হয়তো আল্লাহ্ ফিরিয়ে দিয়েছে এই তিনজন মানুষের কারণে। ধন্যবাদ দিলে হয়তো ছোট হবে শুধু একটা কথা বলব আজ আমার মায়ের জানটা আমরা ফিরে পেয়েছি, আল্লাহ্ সারা জীবন আপনাদের পরিবারকে রক্ষা করবেন, আমিন।আমি এই ভাইয়া দুজনকে কিছু টাকা দিতে চেয়েছিলাম কিন্তু তারা কোনো টাকা নেয়নি। আজ আমার টাকা হার মেনে গিয়েছে টাকা হলে সব কিছু হয় না আমার মায়ের জন্য অক্সিজেন নিয়ে এসেছিল যে দুইটা ছেলে আল্লাহ্ যেন তোমাদের ভালো রাখে আমিন।"

ফ্রী অক্সিজেন ব্যাংক সার্ভিস টিমের সদস্য সোনারগাঁও জার্নালিষ্ট ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক শওকত ওসমান সরকার রিপন বলেন, করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত ব্যক্তির শ্বাসতন্ত্র দুর্বল হয়ে পড়ার কারণে প্রয়োজনীয় অক্সিজেন তিনি নিতে পারেন না। রোগীর অবস্থা জটিল হলে অক্সিজেন দিতে হয়। তাই তাদের সুবিধার্থে আমরা দিন রাত ২৪ ঘন্টা প্রস্তুত আছি। ভোর চারটায় বৃষ্টিতে ভিজেও আমরা করোনা আক্রান্ত রোগীর বাড়িতে বিনামূল্যে অক্সিজেন পৌঁছে দিয়েছি। 

প্রয়োজনে,০১৬২৭-৭৫১৫৯৯, ০১৯১১-৩২৪৪১০, ০১৭০৭-৭১৪৫২৪০, ০১৮৫০-৮৫৮৫৮৫ ও ০১৮৬৮-৫৫৯৯৪৯ এই নাম্বারে ফোন করলে বিনা খরচে আক্রান্ত রোগীর বাড়িতে অক্সিজেন সিলিন্ডার পৌঁছে যাবে।

শুধু মাত্র সোনারগাঁওয়ের মধ্যেই তাদের সরবরাহ সীমাবদ্ধ রেখেছেন তারা।


এসএস/বি

Post a Comment

[blogger]

যোগাযোগের ফর্ম

Name

Email *

Message *

Theme images by merrymoonmary. Powered by Blogger.
Javascript DisablePlease Enable Javascript To See All Widget