সোনারগাঁওয়ে সানজিদা নামক এক গৃহবধূর লাশ উদ্ধার।

 


সদ্য সংবাদ ডেস্কঃ 
নারায়ণগঞ্জ সোনারগাঁও উপজেলার সাদিপুর এলাকা থেকে গাছের সাথে ঝুলন্ত অবস্থায় সানজিদা (১৮) নামের এক গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

শনিবার সকালে সাদিপুর ইউপির লস্করবাড়ী গ্রামের মাদ্রাসার পিছনে একটি কাঠাল গাছ থেকে গৃহবধূর লাশটি উদ্ধার করা হয়।
পুলিশ ময়না তদন্তের জন্য লাশটি জেলা মর্গে পাঠিয়েছে।এ ঘটনায় সানজিদার স্বামী শামীম মিয়াকে মদনপুর এলাকা থেকে শশুরবাড়ীর লোকজন আটক করে পুলিশে সোর্পদ করে।

শামীম ব্রাক্ষ্মনবাড়িয়া জেলার বানছারামপুর কাইরাকান্দি গ্রামের হিরন মিয়ার ছেলে। তারা মদনপুরের চাঁনপুর এলাকার কাসেম মিয়ার বাড়ীর ভাড়াটিয়া।

এলাকাবাসী জানান, উপজেলার সাদিপুর চোতরাপাশা গ্রামের মৃত সাফিজ উদ্দিনের মেয়ে সানজিদার সাথে ব্রাক্ষ্মনবাড়িয়া জেলার বানছারামপুর গ্রামের হিরণ মিয়ার ছেলে অটো চালক শামীম মিয়ার (২৫) সাথে গত ৫ মাস আগে পরিচয়ের পর বিয়ে হয়।
বিয়ের পর জানতে পারে তার স্বামী শামীম মাদকাসক্ত। এ নিয়ে স্বামীর সাথে সানজিদার মধ্যে কলহের সৃষ্টি হয়।

গতকাল শুক্রবার বিকেলে সানজিদা তার বাবার বাড়ি আসবে বলে তার স্বামীর সাথে বাড়ির উদ্দেশ্যে রওয়ানা দেয়। সন্ধ্যার দিকে তার স্বামী অটোরিক্সায় তাকে নয়াপুর বাসষ্ট্যান্ডে নামিয়ে দিয়ে চলে যায়। আজ সকালে সাদিপুর লস্করবাড়ী গ্রামের মাদ্রাসার পিছনে আক্কা হাজীর পরিত্যক্ত বাড়ীর একটি কাঁঠাল গাছে মাটিতে পা লাগা অবস্থায় সানজিদার ঝুলন্ত লাশ দেখতে পেয়ে স্থানীয়রা পুলিশকে খবর দেয়।

সানজিদার স্বামী শামীম মিয়া জানান, গতকাল তার স্ত্রী বাড়িতে আশার কথা বললে সে তাকে নয়াপুর বাসষ্ঠ্যান্ডে নামিয়ে দিয়ে বাড়িতে চলে যান। এরপর তার সাথে আর কোন যোগাযোগ হয়নি।

সানজিদার মা সালমা আক্তার জানান, বিয়ের পর থেকে তার মেয়ের পরিবারের সাথে দ্বন্ধ চলছিল। সেই দ্বন্দের জেরে তার মেয়েকে হত্যা করে লাশ গাছে ঝুলিয়ে রেখেছে।

উপজেলার মীরেরটেক ফাঁড়ির ইনচার্জ আহসান উল্লাহ জানান, সানজিদার লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য জেলা হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। ময়না তদন্তের রির্পোট হাতে পেলে বিস্তারিত বলা যাবে।
তবে সঠিক তথ্য উদঘাটনে পুলিশ তৎপর রয়েছে।

এসএস/বি

No comments

Powered by Blogger.