সোনারগাঁয়ে যুবকের লাশ উদ্ধার। ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য দেলোয়ারকে সন্দেহ করছে পরিবার।

 

সদ্য সংবাদ ডেস্কঃ 

প্রতিদ্বন্ধী প্রার্থীর সমর্থককে হত্যা করে রাস্তার পাশে ফেলে রাখার অভিযোগ উঠেছে জয়ী প্রার্থীর বিরুদ্ধে। 

এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার সন্দেহে ইউপি সদস্য দেলোয়ার হোসেনকে আটক করে পুলিশের কাছে সোপর্দ করেছে গ্রামবাসী। ঘটনাটি ঘটেছে শুক্রবার রাতে নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ উপজেলার সনমান্দী ইউনিয়নের সাজালেরকান্দি গ্রামে।



নিহতের নাম নয়ন মিয়া (৩০)। সে উপজেলার সনমান্দী ইউনিয়নের মারুবদী গ্রামের আলম মিয়ার ছেলে।

নিহত নয়ন মিয়ার স্ত্রী মানছুরা আক্তার জানান,গত ২৮ নভেম্বর অনুষ্ঠিত উপজেলার সনমান্দী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ইউপি সদস্য প্রার্থী ফিরোজ মিয়ার পক্ষে নির্বাচনী কাজ করেন নয়ন মিয়া। এতে দেলোয়ার সে সময় তার স্বামী নয়ন মিয়াকে দেখে নেয়ার হুমকি দেয়। নির্বাচনে দেলোয়ার হোসেন জয়ী হওয়ার পরই তার স্বামী তাদেরকে নিয়ে পার্শ্ববর্তী বন্দর উপজেলার কেওঢালা এলাকায় বাসা ভাড়া নিয়ে বসবাস শুরু করেন। শুক্রবার সন্ধ্যায় মারুবদী আসার উদ্দেশ্যে বাসা থেকে বের হয়ে আর ফেরেননি। রাতভর মুঠোফোনে যোগাযোগ করেও আর খোজঁ পাওয়া যায়নি। পরে সকালে সাজালেরকান্দি রাস্তার পাশে তার লাশ দেখতে পায় এ কথা বলেই কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন এবং হত্যার সঙ্গে জড়িতদের ফাসিঁর দাবি জানান তিনি। তিনি এ ঘটনার সঙ্গে ইউপি সদস্য দেলোয়ার হোসেন ও তার লোকজন জড়িত বলে দাবি করেন। 

নিহত নয়ন মিয়ার দুটি কন্যা সন্তান রয়েছে।

এ দিকে ঘটনাস্থলে পুলিশ ও লোকজন জড়ো হয়। দেলোয়ার হোসেন সেখানে উপস্থিত হলে স্থানীয় গ্রামবাসী হত্যার সঙ্গে দেলোয়ার জড়িত থাকার অভিযোগ এনে শ্লোগান দিয়ে বিক্ষোভ করেন। পরে দেলোয়ার হোসেনকে পুলিশের সামনেই মারধর করে পুলিশের কাছে সোপর্দ করেন উপস্থিত জনতা।

সোনারগাঁ থানার ওসি মোহাম্মদ হাফিজুর রহমান জানান,লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে,পুরো বিষয়টির তদন্ত চলছে।


এসএস/বি

Post a Comment

[blogger]

যোগাযোগের ফর্ম

Name

Email *

Message *

Theme images by merrymoonmary. Powered by Blogger.
Javascript DisablePlease Enable Javascript To See All Widget