নারায়ণগঞ্জে ভূল চিকিৎসায় প্রসুতির মৃত্যু,সেন্ট্রাল হাসপাতাল ভাংচুর।

 

সদ্য সংবাদ ডেস্কঃ 

নারায়ণগঞ্জ শহরের খানপুর জোড়া পানির টাংকি এলাকায় সেন্ট্রাল জেনারেল হাসপাতালে ভুল চিকিৎসায় পান্না (৩০) নামে এক প্রসূতির মৃত্যুর অভিযোগ তুলেছে স্বজনরা।নারায়ণগঞ্জ শহরের সেন্ট্রাল হাসপাতালে প্রসূতির মরদেহ নিয়ে হাসপাতাল ঘেরাও ও ভাঙচুর করেছেন তারা। 

সোমবার ১৫ই মার্চ রাত ১১টার দিকে খানপুর এলাকার সেন্ট্রাল জেনারেল হাসপাতালে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত পান্না সেন্ট্রাল জেনারেল হাসপাতালের ডা. মিসকাত জাহান হেনার অধীনে চিকিৎসাধীন ছিলেন।


পান্নার স্বামী চাষাঢ়া মোড়ের ফল ব্যবসায়ী জিসান চাঁদপুর জেলার মতলব এলাকার বাসিন্দা।তিনি নারায়ণগঞ্জ শহরের ডনচেম্বার এলাকার সবুজ মিয়ার বাড়িতে বসবাস করতেন।

স্বজনরা জানান, সোমবার বেলা ১১ ঘটিকার দিকে পান্নাকে এই হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বিকেল ৪টায় অস্ত্রপচার করেন মিশকাত জাহান হেনা। একটি মেয়েশিশুর জন্ম দেন পান্না। তখন মা মেয়ে দুজনই সুস্থ ছিল। কিছুক্ষণ পর নবজাতক মেয়েকে আদর করার সময় কাশি হয়। কাশি দেওয়ার পর নার্স ডাকা হলে তিনি এসে ইনজেকশন পুশ করেন। তারপরই বমি ও রক্ত বের হয়, অবস্থা আরও খারাপ হলে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তাকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পরামর্শ দেয়। সেখানে নেয়া হলে চিকিৎসক পান্নাকে মৃত ঘোষণা করেন।

পান্নার স্বজন ও এলাকাবাসী রাতে মরদেহ নিয়ে খাঁনপুর ফিরে সেন্ট্রাল জেনারেল হাসপাতাল ঘেরাও ও আসবাব ভাঙচুর করেন। তাদের অভিযোগ, চিকিৎসকের অবহেলা ও ভুল চিকিৎসায় তার মৃত্যু হয়েছে। পরে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

চিকিৎসক মিশকাত জাহান হেনা জানান, অস্ত্রপচারের ১৫ মিনিট পর অবজারভেশন রুমে নিলে পান্না স্ট্রোক করেন। এ সময় তাকে একটি ইনজেকশন দেয়া হয়। এরপরও অবস্থার উন্নতি না হলে ঢাকায় পাঠানো হয়।

হাসপাতালের মালিক মনিরুজ্জামানের দাবি,রোগী মৃত্যুর দায় তার হাসপাতালের নয়। ঢাকায় নেয়ার পথে কোনো কারণে পান্নার মৃত্যু হয়েছে।

ঘটনাস্থলে যাওয়া নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানার উপপরিদর্শক (এসআই) সিরাজুল ইসলাম জুয়েল জানান, রোগীর মারা যাওয়ার খবর পেয়ে আমরা এসেছি। এ বিষয়ে এখন পর্যন্ত থানায় কেউ অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।


এসএস/বি

No comments

Powered by Blogger.