সোনারগাঁওয়ে অনুমতিবিহীন সরকারি জায়গায় জেটি নির্মাণ,অবৈধভাবে আদায় করা হচ্ছে টাকা।


নিজস্ব সংবাদদাতাঃ

সরকারি ভাবে পাকা জেটি থাকা অবস্থায়ও প্রভাবশালী ব্যাক্তিবর্গ বাঁশদিয়ে অবৈধ ভাবে আরেকটি জেটি নির্মাণ করে তাতে চলাচলে বাদ্য করছে যাত্রী সাধারণকে।

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁও উপজেলার বৈদ্দেরবাজার ইউনিয়নের আনন্দবাজার হাটে সরকারি অর্থায়নে নৌ যাত্রীদের জন্য নির্মিত নৌ জেটিটি ব্যবহারে বাধা প্রদান করছে স্থানীয় ইউপি সদস্য বাসেত’র ভাই প্রভাবশালী ব্যাক্তি রুস্তম।



সরেজমিনে দেখা যায়,নৌপথে লোক চলাচলে সরকারি অর্থায়নে ব্যায়বহুল ভাবে একটি পাকা জেটি ও জনসাধারণের ফ্রেস হওয়ার জন্য অত্যাধুনিক একটি ওয়াশ বল্ক জেটির পাশেই নির্মাণ করা হয়। যাতে চরাঞ্চলের মানুষ ট্রলার অথবা নৌকা করে এই জেটি ব্যবহার করে নির্বিঘ্নে তাদের উৎপাদিত কৃষিপণ্য আনন্দ বাজার হাটে এনে বিক্রি করতে পারে।
পাশাপাশি সোনারগাঁও,ঢাকায় চাকুরীরত,কুমিল্লার মেঘনা থানা,আড়াই হাজার এলাকার কালাপাহাড়িয়া,দশ মৌজা ও বারদী ইউনিয়নের নুনের টেক চরাঞ্চল হতে হাজার হাজার জনগণও দীর্ঘদিন ধরে সরকারী নির্মিত নতুন পাকা জেটিই ব্যবহার করে আসছে।
কিন্তু বাসেত মেম্বারের ভাই রুস্তম অবৈধ ভাবে অর্থ উপার্জনের জন্য সরকারি জায়গা দখল করে পাশাপাশি আরৈকটি বাঁশের জেটি তৈয়ার করে যাত্রী সাধারণকে ব্যবহারে জোরপূর্বক বাদ্য করছে। এবং আসা যাওয়ার হাজার হাজার যাত্রী ও নৌকা থকে অবৈধ ভাবে টোল আদায় করছে, যাহা আইনত অপরাধ।
এই বিষয়ে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক চরাঞ্চলবাসী বলেন,পাকা জেটি ব্যবহারে আমরা স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করতাম,কোন টাকা দেওয়া লাগতো না। এখন জন প্রতি তিন টাকা ও নৌকা প্রতি ত্রিশ টাকা বাধ্যতামূলক দেওয়া লাগে,একপ্রকারের জোরপূর্বক আদায় করে তারা।
প্রতিবাদ করতে গেলে দৈহিক নির্যাতনের হুমকি দেয়া হয়।
এই প্রভাবশালীদের কারনেই সরকারের উন্নয়নের সুবিধা জনগণ ভোগ করতে পারছেনা,সৃষ্টি হচ্ছে মিশ্র প্রতিক্রিয়া।
এই ব্যাপারে জানতে,সোনারগাঁও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে মুঠোফোনে পাওয়া যায়নি।

এসএস/বি


Post a Comment

[blogger]

যোগাযোগের ফর্ম

Name

Email *

Message *

Theme images by merrymoonmary. Powered by Blogger.
Javascript DisablePlease Enable Javascript To See All Widget