সাংবাদিকদের নামে চাঁদাবাজি মামলায় আটকের ঘটনায় বিএমএসএফ'র উদ্বেগ।

 

সদ্য সংবাদ ডেস্কঃ 


 ব্রাক্ষ্মনবাড়িয়ার আশুগঞ্জে একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে করোনা পরবর্তী শিক্ষার্থীদের খবরাখবর জানতে গিয়ে স্থানীয় পত্রিকার সম্পাদক  আলী আজমকে আটকিয়ে পুলিশে দিলেন শিক্ষকরা। এ ঘটনায় ঐ সম্পাদকসহ দৈনিক ভোরের ডাকের প্রতিনিধি আশিকুর রহমান রনির বিরুদ্ধেও চাঁদাবাজি মামলা দায়ের করা হয়। 



মঙ্গলবার (১৪সেপ্টেম্বর) ব্রাক্ষ্মনবাড়িয়ার আশুগঞ্জের একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এঘটনা ঘটে।

কোনরুপ যাচাই বাছাই ছাড়া এরুপ স্পর্শকাতর মামলায় একজন সম্পাদককে আটক এবং অপর সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মামলা দায়েরের ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরাম-বিএমএসএফ। মামলার ঘটনাটি নিরপেক্ষ তদন্তেরও দাবি করে সংগঠনটি। এ ব্যাপারে বিএমএসএফের সভাপতি শহীদুল ইসলাম পাইলট ও সাধারণ সম্পাদক আহমেদ আবু জাফর বলেন, সাংবাদিকরা খবর সংগ্রহে মাঠেঘাটে যাবেন। আর এই সুযোগে দূর্ণীতিবাজরা সস্তা দরে চাঁদাবাজি মামলা ঢুকে দিয়ে শেষরক্ষা পেতে চান। এটা হতে পারেনা। এই সুযোগে এক শ্রেনীর রাক্ষুসে সাংবাদিকরা হয়রাণীর শিকার সাংবাদিকের বিরুদ্ধে সংবাদ প্রকাশ করে থাকেন। যা পেশার মর্যাদা ক্ষুন্নের শামিল।

যে হারে দেশে সাংবাদিকদের মিথ্যা-বানোয়াট মামলায় হয়রাণী করা হচ্ছে তাতে সাংবাদিক সমাজ বিব্রত। এভাবে চলতে পারেনা। তাই এরুপ ঘটনার প্রতিরোধ দরকার। সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে কোন মামলা করতে হলে তা প্রেস কাউন্সিলেই করতে হবে।


এসএস/বি

Post a Comment

[blogger]

যোগাযোগের ফর্ম

Name

Email *

Message *

Theme images by merrymoonmary. Powered by Blogger.
Javascript DisablePlease Enable Javascript To See All Widget